kalerkantho


'বঙ্গবন্ধুর খুনিদের বিচার না করে তাদের পুরস্কৃত করেছেন জিয়া'

ঝালকাঠি প্রতিনিধি   

১০ আগস্ট, ২০১৮ ২৩:৫৪



'বঙ্গবন্ধুর খুনিদের বিচার না করে তাদের পুরস্কৃত করেছেন জিয়া'

শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু। ছবি: কালের কণ্ঠ

জিয়াউর রহমান বঙ্গবন্ধুর খুনিদের বিচার না করে তাদের পুরস্কৃত করেছিলেন বলে মন্তব্য করেছেন শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু। তিনি বলেন, বিভিন্ন দূতাবাসে খুনিদের চাকরি দিয়ে প্রতিষ্ঠিত করা হয়েছিল। দেশ থেকে হত্যাকারীদের পালিয়ে যেতে সহযোগিতা করেছেন জিয়া। এমনকি এ হত্যার বিচার যাতে না হয়, সেজন্য একটি আইন পাশ করা হয়েছিল। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর সংবিধানের চারটি মূলনীতি ছুড়ে ফেলে দেওয়া হলো। নতুন ধারায় এই দেশকে পরিচালনা করেছিল ষড়যন্ত্রকারীরা। সেই থেকেই বাংলাদেশ পিছিয়ে যায়। শেখ হাসিনা ক্ষমতায় এসে বঙ্গবন্ধুর সেইসব অসমাপ্ত কাজ করে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন। 

আজ শুক্রবার বিকেলে ঝালকাঠির নলছিটিতে জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমানের ৪৩তম শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবসের আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে শিল্পমন্ত্রী এসব কথা বলেন। পৌরসভা চত্বরে উপজেলা আওয়ামী লীগ এ সভার আয়োজন করে। 

বঙ্গবন্ধু বেঁচে থাকলে বাংলাদেশ ২০২৫ সালের মধ্যে উন্নত দেশে রূপান্তরিত হতো দাবি করে শিল্পমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু চেয়েছিলেন বাংলাদেশ বিশ্বের বুকে মাথা উঁচু করে দাঁড়াবে। তিনি বেঁচে থাকলে ১৯৮০ সালে মধ্যেই বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশে রূপান্তরিত হতো এবং ২০২৫ সালের মধ্যে উন্নত দেশে পরিণত হতে পারতো। আমরা ৩৮ বছর পিছিয়ে আছি শুধু বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করার কারণে। 

শেখ হাসিনা বেঁচে আছেন বলেই আজ মানুষের মুখে হাসি ফুটেছে জানিয়ে শিল্পমন্ত্রী বলেন, ষড়যন্ত্রকারীরা শেখ হাসিনাকেও হত্যা করতে চেয়েছিল। ১৯ বার তাকে হত্যার পরিকল্পনা করা হয়। আল্লাহর রহমতে তিনি বেঁচে আছেন বলেই দেশে উন্নয়নের জোয়ার বইছে, গরিব-দুঃখি মানুষের মুখে হাসি ফুটেছে।

বিগত সরকারগুলো পাকিস্তানি স্টাইলে দেশ চালিয়েছে মন্তব্য করে শিল্পমন্ত্রী বলেন, এখনো পাকিস্তানের প্রেতাত্মারা থেমে নেই, সুযোগ পেলেই ক্ষমতায় আসতে চায়। তাদের দিকে লক্ষ্য রাখতে হবে, তারা আবার ক্ষমতায় আসলে দেশ পিছিয়ে যাবে। তাই আগামী নির্বাচনে নৌকা প্রতীকের প্রার্থীদের জয়ী করতে হবে। 

উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও পৌর মেয়র তছলিম উদ্দিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে শোক দিবসের আলোচনা সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক খান সাইফুল্লাহ পনির, সহসভাপতি সিদ্দিকুর রহমান, নলছিটি উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো. ইউনুস লস্কর, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি ডা. এসকেন্দার আলী খান, সাধারণ সম্পাদক জনার্ধন দাস, যুবলীগ নেতা মামুন তালুকদার ও উপজেলা ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক দিদারুল আলম রায়হান। 



মন্তব্য