kalerkantho


গাংনীতে স্ত্রী হত্যার অভিযোগ, পলাতক স্বামীর পরিবার

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১০ আগস্ট, ২০১৮ ১৬:১৩



গাংনীতে স্ত্রী হত্যার অভিযোগ, পলাতক স্বামীর পরিবার

মেহেরপুরের গাংনীতে এক গৃহবধূকে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে তার স্বামী সামাদুল ইসলামের বিরুদ্ধে। নিহত গৃহবধূর নাম লিপিয়ারা খাতুন (২৮)। লিপিয়ারা খাতুন গাংনী পৌরসভা এলাকার চৌগাছা গ্রামের মালেশিয়া প্রবাসী মোজাম্মেল হকের মেয়ে ও কুষ্টিয়া মান্নান হার্ট ফাউন্ডেশন হাসপাতালের সিনিয়র স্টাফ নার্স। ঘটনার পর লিপিয়ারার স্বামী একই উপজেলার চেংগাড়া গ্রামের সামাদুল ইসলাম ও তার পরিবারের লোকজন পালিয়েছে। আজ শুক্রবার দুপুর সাড়ে ১২টার সময় চেংগাড়া গ্রামের বাসস্ট্যান্ড পাড়া এলাকায় সামাদুলের ঘর থেকে ঝুলন্ত অবস্থায় তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়। গাংনী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হরেন্দনাথ সরকার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

লিপিয়ারার ছোট ভাই আরিফুল ইসলাম বলেন, প্রায় এক বছর আগে আমার বোন লিপিয়ার সঙ্গে চেংগাড়া গ্রামের ইনামুল ইসলামের ছেলে সামাদুল ইসলামের বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই যৌতুকের টাকার দাবিতে তার ওপর নির্যাতন চালানো হতো। একপর্যায়ে আমার বোন বাদী হয়ে সামাদুল ও তার মা সামেনা খাতুনের বিরুদ্ধে মেহেরপুর আদালতে যৌতুক ও নারী নির্যাতন মামলা করে। বৃহস্পতিবার মেহেরপুর আদালতে মামলার দিন ধার্য ছিল। কিন্তু জজ না থাকায় মামলার সেদিন শুনানি হয়নি।  

শুক্রবার সকালে আমার বোনকে তার স্বামী সামাদুল ইসলাম মামলার আপোষ করার জন্য মোবাইল ফোনে ডেকে নিয়ে হত্যা করে মরদেহ ঘরের আঁড়ার সঙ্গে ঝুলিয়ে রেখে পালিয়ে যায়। স্থানীয় প্রতিবেশীরা আমাদের খবর দিলে আমরা তার শ্বশুরবাড়িতে গিয়ে ঝুলন্ত অবস্থায় মরদহে দেখতে পাই। সেখান থেকে উদ্ধার করে গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে দায়িত্বরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।
 



মন্তব্য