kalerkantho


পঞ্চগড়ে হাসপাতালের ভুল রিপোর্টে হয়রানির শিকার প্রসূতি

পঞ্চগড় প্রতিনিধি   

২২ জুলাই, ২০১৮ ২০:৫৪



পঞ্চগড়ে হাসপাতালের ভুল রিপোর্টে হয়রানির শিকার প্রসূতি

পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি এক প্রসূতি রোগীর হেপাটাইটিস বি ভাইরাসের পরীক্ষায় ভুল রিপোর্ট দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। হাসপাতালের মেডিক্যাল টেকনোলজিস্টের দেওয়া ভুল রিপোর্টের কারণে ৪ দিন সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাতে হয় ওই রোগী ও তার পরিবারকে। এ বিষয়ে আজ রবিবার ওই প্রসূতি রোগীর ক্ষুব্ধ স্বামী স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়সহ বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ করেন। 

লিখিত অভিযোগে বলা হয়, গত ১৭ জুলাই তাঁর সন্তানসম্ভবা স্ত্রী শ্যামলী আক্তারের প্রসব ব্যথা শুরু হলে তাঁকে পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন সদর উপজেলার সাহেবিজোত এলাকার বিপ্লব হাসান। এ সময় কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে হেপাটাইটিস বি সহ বিভিন্ন বিষয়ে প্রয়োজনীয় পরীক্ষার জন্য নির্দেশনা দেন। হেপাটাইটিস বি পরীক্ষা করাতে গেলে হাসপাতালের মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট লাভলী আক্তার শ্যামলী আক্তারকে হেপাটাইটিস বি পজেটিভ বলে রিপোর্ট দেন। এমনকি এই রিপোর্টের ভিত্তিতে শ্যামলী আক্তারের বেডের সামনে হেপাটাইটিস বি পজেটিভ লিখে একটি সাইন বোর্ড টানিয়ে দেওয়া হয়। সাইন বোর্ড টানানোর পর থেকে হাসপতালের কোনও নার্স কিংবা চিকিৎসক ওই রোগীর কাছে যায়নি। এদিকে প্রয়োজনীয় চিকিৎসার অভাবে রোগীর অবস্থার অবনতি হতে থাকলে তাকে জোরপূর্বক রংপুরে মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করার নির্দেশনাসহ ছাড়পত্র দিয়ে বের করে দেয় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। পরে শ্যামলীকে রংপুর মেডিক্যাল কলেজে হাসপাতালে নিয়ে গেলে পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালের রিপোর্ট দেখে তারাও হাসপাতালে ভর্তি করেনি। পরে এক চিকিৎসকের পরামর্শে পুনরায় হেপাটাইটিস বি পরীক্ষার জন্য রংপুর আপডেট ডায়াগোনস্টিক সেন্টারে নিয়ে গেলে সেখানকার কনসালটেন্ট মোস্তাফিজুর রহমান শ্যামলীকে হেপাটাইটিস বি নেগেটিভ বলে রিপোর্ট দেন। 

এরপরে শ্যামলীকে রংপুর থেকে ফের পঞ্চগড়ে ফিরিয়ে এনে স্থানীয় নিউ লাইফ ক্লিনিকে ভর্তি করানো হয়। ক্লিনিক কর্তৃপক্ষ তাকে আরেকবার হেপাটাইটিস বি পরীক্ষার পরামর্শ দেন। পরে পঞ্চগড় নর্দান ডায়াগোনস্টিক সেন্টারে তাকে আবারও পরীক্ষা করাতে হয়। সেখানকার রির্পোটেও হেপাটাইটিস বি নেগেটিভ বলে উল্লেখ করা হয়। 

পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালের একটি ভুল রিপোর্টের কারণে ওই প্রসূতি মাকে ৪ দিন চরম যন্ত্রণা ও ভোগান্তি পোহাতে হয়। গত শনিবার পঞ্চগড় নিউ লাইফ ক্লিনিকে অস্ত্রপচারের মাধ্যমে তিনি একটি কন্যা সন্তানের জন্ম দেন। 

ওই প্রসূতি মা ও সন্তান বর্তমানে সুস্থ থাকলেও বিলম্বে প্রসবের জন্য ওই নবজাতকের ওপর দীর্ঘমেয়াদী প্রভাব পড়তে পারে বলে আশঙ্কা করছেন চিকিৎসকরা। এ বিষয়ে আজ রবিবার ওই প্রসূতির স্বামী বিপ্লব হাসান পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালের মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট লাভলী আক্তারসহ সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করার জন্য স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়সহ বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ করেন। 

এ বিষয়ে অভিযোগকারী বিপ্লব হাসান জানান, পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালের মতো একটি সরকারি প্রতিষ্ঠানের একটি ভুল রিপোর্টের কারণে প্রসূতি মাসহ আমরা নানাভাবে হয়রানির শিকার হয়েছি। আমি চাই এর সাথে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হোক। যাতে আমার মতো আর কাউকে রোগী নিয়ে এমন হয়রানি না হতে হয়।  

এদিকে ভুল রিপোর্টের কথা অস্বীকার করে পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালের টেকনোলজিস্ট লাভলী আক্তার বলেন, সঠিক পদ্ধতিতেই ওই রোগীর হেপাটাইটিস বি পরীক্ষা করা হয়েছে। কোনও পরীক্ষার ক্ষেত্রে এক প্রতিষ্ঠানের রিপোর্টের সাথে অন্য প্রতিষ্ঠানের রিপোর্টে পজেটিভ বা নেগেটিভ হতেই পারে। 

এ ব্যাপারে পঞ্চগড় সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ নিজাম উদ্দিন বলেন, রিপোর্টটি কোন প্রক্রিয়ায় করা হয়েছে সেটা আগে দেখতে হবে। আমরা বিষয়টি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করব। 



মন্তব্য