kalerkantho


৩০ জুলাই নির্বাচন

'সকাল ৭টার মধ্যে ভোটকেন্দ্রে যাওয়ার আহবান'

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী   

২১ জুলাই, ২০১৮ ০০:১১



'সকাল ৭টার মধ্যে ভোটকেন্দ্রে যাওয়ার আহবান'

ছবি: কালের কণ্ঠ

আগামী ৩০ জুলাই নির্বাচনের দিন ভোটারদের সকাল ৭টায় ভোটকেন্দ্রে যাওয়ার আহবান জানিয়েছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী ও রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এ এইচ এম খায়রুজ্জামান লিটন। শুক্রবার বিকেলে নগরীর পদ্মা আবাসিক এলাকায় এক মতবিনিময় সভায় তিনি এ আহ্বান জানান। ১৯ নম্বর ওয়ার্ডের ব্যবসায়ী ও সাধারণ জনগণ এ নির্বাচনী মতবিনিময় সভার আয়োজন করে।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ এইচ এম খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, ভোটের দিন ভোটাররা সকাল ৭টায় ভোটকেন্দ্রে যাবেন। আপনারা না গেলে, ভোটের লাইনে বিএনপি, জামায়াত-শিবিররা লাইনে দাঁড়াবে। ভোটারদের ভুল বুঝাবে। এই সুযোগ কেউ দেবেন না।

গত ৫ বছরে রাজশাহীর কোনো উন্নয়ন হয়নি উল্লেখ করে খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, ২০১৩ সালে আমি মেয়র নির্বাচিত হলে এতদিনে অনেক উন্নয়ন হয়ে যেত। কিন্তু আমি মেয়র না হওয়ায় রাজশাহীবাসীর জীবন থেকে ৫টি বছর নষ্ট হয়ে গেল। কেন উন্নয়ন হলো না। গত পাঁচ বছর চেয়ে দেখেছি, কিছু করার ছিল না। আমরা আর পিছিয়ে যেতে চাই না। উন্নয়ন চাইলে নৌকা মার্কায় ভোট দিন। আমাকে কাজ করার সুযোগ দিন।

এসএন ফ্যাশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শাকিল আহম্মেদ আরমানের সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন রাজশাহী বঙ্গবন্ধু কলেজের অধ্যক্ষ নুরুল ইসলাম, রাজশাহী মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি কামাল হোসেন রবি ও এস এন ফ্যাশানের চেয়ারম্যান নিলুফা ইয়াসমিন প্রমুখ। সঞ্চালনায় ছিলেন বঙ্গবন্ধু কলেজের প্রভাষক শাহাদত হোসেন।

এদিকে শুক্রবার হযরত শাহ মখদুম (রহ.) মাজার জামে মসজিদে পবিত্র জুমার নামাজ আদায় করেছেন এ এইচ এম খায়রুজ্জামান লিটন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান পরিবারের সদস্য, আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিমের ছেলে যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির অন্যতম সদস্য ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নাঈম, খুলনা সিটি কর্পোরেশনের নবনির্বাচিত মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক। নামাজ শেষে মুসল্লিদের সঙ্গে কুশল বিনিময় ও নৌকার জন্য গণসংযোগ করেন তাঁরা। এরপর বিকেলে নগরীর ১৫ নম্বর ওয়ার্ডে মতবিনিময় সভায় যোগ দেন খুলনার মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক। এ সময় উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগ নেতা শামসুজ্জামান রতন, মহানগর যুবলীগের যুগ্ম-সম্পাদক তৌরিদ আল মাসুদ রনি প্রমুখ। 



মন্তব্য