kalerkantho


এইচএসসি পরীক্ষা

কুমিল্লায় সবক্ষেত্রেই এগিয়ে মেয়েরা, বেড়েছে পাশের হার ও জিপিএ-৫

নিজস্ব প্রতিবেদক, কুমিল্লা   

১৯ জুলাই, ২০১৮ ১৮:০৬



কুমিল্লায় সবক্ষেত্রেই এগিয়ে মেয়েরা, বেড়েছে পাশের হার ও জিপিএ-৫

গত বছর আশঙ্কাজনক হারে ফলাফল বিপর্যয়ের পর এ বছর আবারো ভালো ফলাফলের মুখ দেখেছে কুমিল্লা বোর্ডের এইচএসসি শিক্ষার্থীরা। এ বছর কুমিল্লা শিক্ষাবোর্ডে বেড়েছে পাশের হার এবং জিপিএ-৫ প্রাপ্তির হার। সেই সাথে কুমিল্লা বোর্ডের অধীনস্ত ৬টি জেলার মধ্যেও পাশের হারের দিক থেকে এগিয়ে আছে কুমিল্লা। এদিকে পাশের হার, জিপিএ-৫ প্রাপ্তি এবং জেলা ভিত্তিক পাশের হারে সব দিক থেকে এগিয়ে আছে কুমিল্লা বোর্ডের মেয়েরা। এছাড়া আট বোর্ডের মধ্যে চতুর্থ অবস্থানে রয়েছে কুমিল্লা শিক্ষা বোর্ড।

আজ বৃহস্পতিবার দুপুর ২টায় আনুষ্ঠানিকভাবে সাংবাদিকদের কাছে এইচএসসির ফলাফল তুলে ধরেন কুমিল্লা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর মো: রুহুল আমিন ভূঁইয়া। 

ফলাফল পর্যালোচনা করলে দেখা যায়, ২০১৫ সালে কুমিল্লা শিক্ষা বোর্ডে পাশের হার ছিল ৫৯.৮০ শতাংশ এবং জিপিএ-৫ পেয়েছিল ১ হাজার ৪৫২ জন। ২০১৬ সালে পাশের হার ৬৪.৪৯ শতাংশ এবং জিপিএ-৫ পেয়েছে ১৯১২জন। এর মধ্যে গত বছর ২০১৭ সালে ফলাফল বিপর্যয় হলে পাশের হার দাড়ায় ৪৯.৫১ শতাশং এবং জিপিএ-৫ পায় ৬৭৮ জন। গত বছর ফলাফল বিপর্যয়ের পর কুমিল্লায় ঘটে যায় আত্মহত্যার মত বেশ কয়েকটি ঘটনা। এ বছর কুমিল্লা বোর্ডের শিক্ষার্থীরা আবারো নিজেদের মান উন্নয়ন করে বোর্ডের পাশের হার ৬৫.৪২ শতাংশে উত্তীর্ণ করেছে। এর ফলে গত বছরের তুলনায় এ বছর পাশের হার বেড়েছে ১৫.৯ শতাংশ। এ ছাড়াও গত বছরের তুলনায় এ বছর জিপিএ-৫ও বেড়েছে ২৬৬ জন। এ বছর কুমিল্লা শিক্ষা বোর্ডে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৯৪৪ জন। 

কুমিল্লা শিক্ষা বোর্ডে এবার ১ লাখ ৩৬৬৬ জন পরীক্ষার্থী অংশ গ্রহণ করে পাশ করেছে ৬৭ হাজার ৮২০ জন। এর মধ্যে ৩০ হাজার ৩৬৮ জন ছেলে এবং ৩৭ হাজার ৪৫২ জন মেয়ে পাশ করেছে। এ বছর পাশের হার ৬৫ দশমিক ৪২ শতাংশ। এ বছর জিপিএ-৫ পেয়েছে ৯৪৪ জন। গত বছরের তুলনায় এ বছর বেড়েছে জিপিএ-৫ প্রাপ্তির সংখ্যা। গত বছরের তুলনায় এ বছর শতভাগ পাশ করা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা দ্বিগুণ বেড়ে দাড়িয়েছে ১৪টিতে। এ বছরের ফলাফলে একজনও পাশ করেনি এমন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা রয়েছে মাত্র ২টি।
 
এদিকে এ বছর পাশের হার, জিপিএ-৫ প্রাপ্তি এবং জেলা ভিত্তিক পাশের হার সব দিক থেকে এগিয়ে আছে মেয়েরা। এবার মেয়েদের পাশের হার ৬৭.০৮ শতাংশ এবং ছেলেদের পাশের হার ৬৩.৪৯ শতাংশ। এ বছর মেয়েরা জিপিএ-৫ পেয়েছে ৪৮৩ জন এবং ছেলেরা জিপিএ-৫ পেয়েছে ৪৮৩ জন। 
এ বছরের ফলাফলে সকল শাখায়ও বেড়েছে পাশের হার। গত বছর বিজ্ঞান শাখায় পাশের হার ছিল ৭৩.৩৫ শতাংশ তা এ বছর বেড়ে দাড়িয়েছে ৮৩.০৫ শতাংশে। বিজ্ঞান শাখায় জিপিএ-৫ পেয়েছে ৭৯৯ জন। এর মধ্যে ৪১৭ জন ছেলে এবং ৩৮২ জন মেয়ে জিপিএ-৫ পেয়েছে।

গত বছর মানবিক শাখায় পাশের হার ছিল ৫১.১৯ শতাংশ তা এ বছর বেড়ে দাড়িয়েছে ৫৬.৬১ শতাংশে। মানবিক শাখায় জিপিএ-৫ পেয়েছে ৫৩ জন। এর মধ্যে ১৫ জন ছেলে এবং ৩৮ জন মেয়ে জিপিএ-৫ পেয়েছে।

গত বছর ব্যবসায় শাখায় পাশের হার ছিল ৬৪.৮২ শতাংশ তা এ বছর বেড়ে দাড়িয়েছে ৬৫.১৩ শতাংশে। এবার ব্যবসায় শিক্ষা শাখায় জিপিএ-৫ পেয়েছে ৯২ জন। এর মধ্যে ২৯ জন ছেলে এবং ৬৩জন মেয়ে জিপিএ-৫ পেয়েছে।

এদিকে কুমিল্লা বোর্ডের অধীনে ৬ জেলার মাঝে এগিয়ে আছে কুমিল্লা জেলার শিক্ষার্থীরা। কুমিল্লা বোর্ডের অধীনস্থ নোয়াখালী জেলায় পাশের হার ৬০.৪০ শতাংশ, ফেনী জেলায় পাশের হার ৫০.৮২ শতাংশ, লক্ষ্মীপুর জেলায় পাশের হার ৫৯.৪৯ শতাংশ,  চাদপুর জেলায় পাশের হার ৬৯.৮০ শতাংশ,  কুমিল্লা জেলায় পাশের হার ৭৩.৫৮ শতাংশ,  ব্রা‏ক্ষণবাড়িয়া জেলায় পাশের হার ৬১.৮০ শতাংশ।



মন্তব্য