kalerkantho


গফরগাঁওয়ে ঝুঁকিপূর্ণ রেলক্রসিং, দুর্ঘটনার আশঙ্কা

গফরগাঁও (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি    

১৬ জুলাই, ২০১৮ ১৫:২৭



গফরগাঁওয়ে ঝুঁকিপূর্ণ রেলক্রসিং, দুর্ঘটনার আশঙ্কা

ঢাকা-ময়মনসিংহ রেলপথের গফরগাঁও-ভালুকা সড়কের শিবগঞ্জ রেলক্রসিংটি ক্রমেই ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠছে। ট্রেন আসার পূর্ব মুহূর্তেও বেপরোয়া যানবাহন চলাচল করায় যে কোন সময় ঘটতে পারে বড় ধরনের দুর্ঘটনা।

ক্রসিংটিতে রেলওয়ের দুইজন গেইটম্যান থাকলেও যথাযথ দায়িত্ব পালন না করায় এবং যানবাহনের চালকরা আইন না মানায় এ অবস্থা সৃষ্টি হয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ঢাকা-ময়মনসিংহ রেলপথের গফরগাঁও-ভালুকা সড়কের শিবগঞ্জ রেলক্রসিং খুবই ব্যস্ততম একটি স্থান। ট্রাক, বাস, রিকশা, নছিমন, করিমন, অটোবাইকসহ শত শত যানবাহন প্রতিদিন এ ক্রসিং দিয়ে চলাচল করে। এ জন্য রেলওয়ে বিভাগ এখানে জেব্রা কসিং স্থাপন করে দুইজন কর্মচারীকে (গেইটম্যান) নিয়োগ করেছে।

স্থানীয়দের অভিযোগ, ট্রেন আসার সময় এক পাশের জেব্রাদণ্ড ফেলা হলেও অবাধে যানবাহন পার হয়। ফলে যে কোন সময় ঘটতে পারে বড় দুর্ঘটনা। এ ছাড়া  গফরগাঁও স্টেশনের দুই দিকের আউটার সিগনালের মধ্যবর্তী রেললাইনে পাথর না থাকায় ট্রেন চলার সময় মারাত্মকভাবে দুলতে থাকে বলে যাত্রীরা আতঙ্কিত হয়ে পড়েন। যে কোন সময় ট্রেন লাইনচ্যুত হয়ে পড়তে পারে।

ট্রেন যাত্রী আফসানা বেগম বলেন, 'গফরগাঁও আউটার সিগনালে ট্রেন প্রবেশের পর থেকেই এমনভাবে দুলতে থাকে যেন মনে হয় এই বুঝি ট্রেন লাইনচ্যুত হয়ে পড়ে গেল।' 

গফরগাঁও রেলওয়ের উর্ধ্বতন উপ-সহকারী প্রকৌশলী (পথ) মোস্তাফিজুর রহমানের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, 'রাজনৈতিক হাঙ্গামার সময় প্রতিপক্ষের ওপর ছুড়তে লোকজন রেলের পাথর নিয়ে যায়। এ জন্য রেল লাইনের পাথর থাকে না। এ ছাড়া পাথরের ঘাটতি থাকায় সব জায়গায় পাথর দেওয়া সম্ভব হয় না। তবে যেখানে পাথর বেশি দরকার সেখানে কিছু কিছু পাথর দেওয়া আছে।'

গফরগাঁও রেলওয়ে স্টেশন মাস্টার মোসলেম উদ্দিন বলেন, একপাশে খোলা থাকায় ট্রেন আসার পূর্ব মুহূর্তে অনেক সময় যানবাহন রেলের ওপর উঠে যায়। এতে দুর্ঘটনার আশঙ্কা রয়েছে। এক পাশের বেরিয়ারটি বেশ কিছু দিন ধরে অকেজো হয়ে আছে। মেরামত করে দেওয়ার জন্য স্থানীয় পিডাব্লিউকে (উর্ধ্বতন উপ-সহকারী প্রকৌশলী গফরগাঁও) জানানো হয়েছে। 



মন্তব্য