kalerkantho


ভোলায় গৃহবধূকে জবাই করে হত্যার চেষ্টা

ভোলা প্রতিনিধি   

১৫ জুলাই, ২০১৮ ২০:৪৭



ভোলায় গৃহবধূকে জবাই করে হত্যার চেষ্টা

ভোলা সদর উপজেলার শিবপুর ইউনিয়নে আরজু বেগম (৩৫) নামে এক গৃহবধূকে রাতের আধারে জবাই করে হত্যার চেষ্টা করেছে দুর্বৃত্তরা। আজ রবিবার ভোর রাতের দিকে শিবপুর ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডে এ ঘটনা ঘটে। 

আহত আরজু বেগম ওই এলাকার বাসিন্দা রাজমিস্ত্রী মোঃ ফরিদের স্ত্রী। তার তিনটি কন্যা সন্তান রয়েছে। 

স্থানীয় একাধিক ব্যক্তি জানায়, ভোর রাতে গৃহবধূ আরজুর ডাকচিৎকার শুনে এগিয়ে গেলে ঘরের মেঝেতে গলাকাঁটা অবস্থায় তাকে দেখতে পাওয়া যায়। দ্রুত তাকে উদ্ধার করে ভোলা সদর হাসপাতালে নেওয়া হয়। এ ঘটনার সাথে কে বা কাহারা জড়িত তা আমরা জানি না।

হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, মূমুর্ষ অবস্থায় আরজু বেগমকে ভোলা সদর হাসপাতালে নেয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে বরিশাল শেরেই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন। 
 
গৃহবধূর বড় মেয়ে মহিমা বলেন, আমার বাবা ঢাকায় রাজের কাজ করে। রাত ৯টার দিকে বাবায় ফোন দেয়, ফোনে কথা বলা শেষ হলে আমরা সবাই রাতের খাবার খেয়ে ঘুমিয়ে যাই। আমি ও আমার ‘‘মা’’ এবং ছোট দুই বোন বাড়িতে থাকি এবং সবাই এক বিছানায় ঘুমাই। আমার ছোট বোন লামিয়া ফজরের আযানের সময় মা মা বলে কান্নাকাটি করে। তারপর আমি ও ছোট বোনের ঘুম ভেঙ্গে যায় এবং পাশে তাকিয়ে দেখি মা বিছানায় নেই। এ সময় ঘরের বিদ্যুতের লাইট জ্বালিয়ে দেখি মা রক্তাক্ত অবস্থায় ঘরের মাটিতে পড়ে আছে। দু-হাত ও পা রশি দিয়ে বাধা কোনো সারা শব্দ নেই। তখন আমরা সবাই ডাক চিৎকার দিতে থাকি। এ সময় বাড়ির আশেপাশের লোকজন ডাক চিৎকার শুনে এগিয়ে এসে মাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠায়। 

তবে এলাকাবাসীর দাবি, এটা পূর্ব পরিকল্পিতভাবে এ কাজ করা হয়েছে। 

এদিকে এ ঘটনার পর আরজুর মেয়ে মহিমা পার্শ্ববর্তী নুরুল ইসলামের পরিবারের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন। অভিযোগে তিনি জানান, আমাদের সাথে তার রয়েছে পূর্বে থেকে জমিজমার সমস্যা। এর দুই দিন আগে আমার মা আরজু বেগমকে দিয়ে ভোলা থানায় প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে একটি সাধারণ ডায়েরি করায় আমার বাবা। তার পরপরই আজ এ অবস্থা। 

ভোলা সদর মডেল থানার ওসি মোঃ ছগির মিঞা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। এ ব্যাপারে তিনি বলেন, আরজু বেগমের স্বামী ঢাকা থেকে বরিশাল হয়ে ভোলা আসতেছে। সে বাদী হয়ে মামলা করবে। এ ছাড়াও আমাদের কার্যক্রম অব্যাহত আছে। তবে এখনো পুলিশ কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি।

 



মন্তব্য