kalerkantho


রায়পুর পৌর আওয়ামী লীগের সম্মেলন

তারিখ দিলেন সম্পাদক, বন্ধ করলেন সভাপতি

কাজল কায়েস, লক্ষ্মীপুর    

২২ জুন, ২০১৮ ১৭:৪৮



তারিখ দিলেন সম্পাদক, বন্ধ করলেন সভাপতি

লক্ষ্মীপুরের রায়পুর পৌর আওয়ামী লীগের সম্মেলন নিয়ে অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে। প্রায় ছয় বছর পর আগামী ৩০ জুন এ সম্মেলন হওয়ার কথা রয়েছে।

এ নিয়ে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলাম ফারুক পিংকু ও সাধারণ সম্পাদক নুরউদ্দিন চৌধুরী নয়নের মধ্যে মতবিরোধ প্রকাশ্যে এসেছে। এ অবস্থায় নেতাকর্মী ও সমর্থকরা রয়েছে বিভ্রান্তিতে।

দলীয় সূত্র জানায়, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের নির্দেশনা মনে করিয়ে দিয়ে সম্মেলন উপলক্ষে পৌরসভার ওয়ার্ড বন্ধ রাখতে ৮ জুন চিঠি দিয়ে নির্দেশ দিয়েছেন জেলা সভাপতি। এর আগে ১২ মে পৌর আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় জেলা সাধারণ সম্পাদক সম্মেলনের তারিখ ঘোষণা করেন। ওই সভায় জেলা সভাপতি ছিলেন না।

জানা গেছে, ২০১৩ সালের ১২ নভেম্বর পৌর আওয়ামী লীগের ২৭ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি ঘোষণা করা হয়। এতে জামশেদ কবির বাক্কি বিল্লাহকে আহ্বায়ক, আইনুল কবির মনির, নিজাম উদ্দিন পাঠান ও গোলাম হায়দার চৌধুরীকে যুগ্ম আহবায়ক মনোনীত করা হয়। তখন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ইসমাইল খোকনের ব্যক্তিগত কার্যালয়ে নতুন কমিটির নেতারা সংবাদ সম্মেলন করেন। তখন কমিটির আহ্বায়ক বলেছিলেন, ছয় মাসের মধ্যে সম্মেলন করা হবে। নতুন কমিটির কাছে নেতৃত্ব বুঝিয়ে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি থাকলে পার হয়ে গেছে প্রায় ছয় বছর। এর মধ্যে ২০১৪ সালে সম্মেলনের উদ্যোগ নেওয়া হলেও তাও ভেস্তে যায়।

জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি চিঠিতে উল্লেখ করেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের লিখিত নির্দেশনা রয়েছে সংসদ নির্বাচনের পূর্বে কোনো প্রকার  নতুন কমিটি গঠন, পরিবর্তন কিংবা পরিবর্ধন করা যাবে না। কেন্দ্রের নির্দেশ অমান্য করার ক্ষমতা কারো নেই। এ অবস্থায় রায়পুর পৌর আওয়ামী লীগের নতুন কমিটি গঠন কার্যক্রম বন্ধ রাখুন। কেন্দ্রের পরবর্তী নির্দেশ ছাড়া কমিটি করা যাবে না।

দলীয় নেতাকর্মীরা জানান, সম্মেলনকে ঘিরে ওয়ার্ড কমিটিগুলো বিলুপ্ত করা হয়েছে। এ সময় ওয়ার্ডের জ্যেষ্ঠ নেতাদের সমন্বয়ে সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি করা হয়।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে রায়পুর পৌর আওয়ামী লীগের এক যুগ্ম আহ্বায়ক বলেন, প্রথম শ্রেণির এ পৌরসভার ৯টি ওয়ার্ডের সভাপতি সাধারণ সম্পাদকসহ নেতারা সরাসরি ভোটে নির্বাচিত হয়েছেন। তাদের কোনো কমিটি বিলুপ্ত করতে হলে আগে পৌর কমিটির সভায় সিদ্ধান্ত নিতে হবে। কিন্তু আমাদের কোনো সভা হয়নি। খামখেয়ালিভাবে রাজনীতি চলতে পারে না।

পৌর কমিটির আহবায়ক জামশেদ কবির বাক্কি বিল্লাহ বলেন, আমরা সম্মেলনের জন্য প্রস্তুত। ইতিমধ্যে ৯টি ওয়ার্ডের সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি ও ওয়ার্ড সম্মেলনের তারিখ ঘোষণা করা হয়েছে। জেলা আওয়ামী লীগ  সভাপতির এক চিঠির কারণে এখন অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে। বিষয়টি সাধারণ সম্পাদককে জানানো হয়েছে।

জানতে চাইলে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নূরউদ্দিন চৌধুরী নয়ন বলেন, নেতাকর্মীদের দাবির মুখে আমি পৌর মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটির সম্মেলনের তারিখ ঘোষণা করেছি। ৩০ জুন সম্মেলন নাও হতে পারে। জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি চিঠি দেওয়ার কথা শুনেছি। বিষয়টি নিয়ে আমরা সমন্বয় করবো।

এ ব্যাপারে লক্ষ্মীপুর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলাম ফারুক পিংকুর সাফ কথা। তিনি বলেন, 'আগামী সংসদ নির্বাচনের আগে কোন সম্মেলনই হবে না। এখন আমরা সংসদ নির্বাচনমুখী। এ সময় সম্মেলন করলে চাওয়া-পাওয়া নিয়ে নেতাদের মধ্যে মতবিরোধ দেখা দেবে। এ জন্য আমি চিঠি দিয়ে সম্মেলনের কার্যক্রম বন্ধ করার জন্য নির্দেশ দিয়েছি।'  



মন্তব্য