kalerkantho


নোয়াখালীতে কামরুল হত্যাকারীদের বিচারের দাবিতে মানববন্ধন

নিজস্ব প্রতিবেদক, নোয়াখালী   

১৮ জুন, ২০১৮ ২০:৫২



নোয়াখালীতে কামরুল হত্যাকারীদের বিচারের দাবিতে মানববন্ধন

নোয়াখালীর সুবর্ণচর উজেলার চরবাটা ইউনিয়নের মধ্য চরবাটা গ্রামের সদ্য এসএসসি পাশ করা ছাত্র কামরুল ইসলাম সাগর(১৮) হত্যাকাণ্ডে দোষী ও জড়িতদের দ্রুত বিচার এবং দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন করছে কামরুলের সহপাঠী, শুভাকাঙ্খী, শিক্ষক, সুধীজনসহ সব শ্রেণি পেশার মানুষ। আজ সোমবার দুপুর সাড়ে ১২টায় সুবর্ণচর নাগরিক সমাজের আয়োজনে সুবর্ণচর উপজেলা প্রেসক্লাবের সামনে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

মির্জাপুর ক্যাডেট কলেজের প্রভাষক মিজান বিন মজিদের তত্বাবধায়নে ও মোঃ আলী আকবরের সঞ্চালনায় মানববন্ধনে অংশগ্রহণ করেন রামগঞ্জ সরকারি কলেজ অধ্যক্ষ মোহাম্মদ আব্দুল কাদের, নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যাল (নোবিপ্রবি) প্রক্টর মোঃ মুশফিকুর রহমান, কাপ্তাই উপজেলার মৎস্য কর্মকর্তা সঞ্জয় দেবনাথ, কবির হাট সরকারি কলেজ প্রভাষক সফিকুল ইসলাম সাজু, অ্যাডভোকেট নিজাম উদ্দিন, আয়কর আইনজীবি জহির উদ্দিন তুহিন, লেখক মোঃ তরিকুল্যাহ, নিহত কামরুলের অসহায় পিতা মোঃ নুর ইসলাম , বড় ভাই নজরিল ইসলামসহ এলাকার বিপুল সংখ্যক ছাত্র জনতা।

এ ছাড়াও মানববন্ধনে অংশ গ্রহণ করেন ঢাকাস্থ সুবর্ণচর স্টুডেন্ট ফোরাম, চট্রগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় সুবর্ণচর স্টুডেন্ট এসোসিয়েশন, নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় সুবর্ণচর স্টুডেন্ট এসোসিয়েশনসহ সুবর্ণচরের সব শ্রেণী পেশার মানুষ।

এ সময় বক্তারা মেধাবী কলেজ শিক্ষার্থী কামরুল ইসলাম সাগরের নির্মম হত্যাকারীদের দ্রুত বিচারের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির জোর দাবি জানান। পাশাপাশি এ ঘটনা যাতে এই জনপদে আর পুনরাবৃত্তি না ঘটে এ জন্য সকলকে সজাগ থাকার জন্য আহ্বান জানান। 

উল্লেখ্য, গত ৮ জুন মধ্যরাতে কলেজছাত্র কামরুল ইসলামকে অপহরণের ৫ দিন পর উপজেলার চরবাটা ইউনিয়নের মধ্য চরবাটা গ্রামের হাজী মুজাম্মেল হক( মুজাম হাজী)বাড়ির পিছনের একটি নালা থেকে অর্ধগলিত অবস্থায় তার গলাকাটা লাশ উদ্ধার করে চরজব্বার থানা পুলিশ। এ ঘটনায় নিহতের বড় ভাই মোঃ নজরুল ইসলাম বাদী হয়ে পাঁচজনকে আসামি করে চরজব্বার থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।
হত্যা কান্ডের এঘটনায় জড়িত থাকার সন্দেহে একই এলাকার মনোরঞ্জন দাস এর বড় ছেলে মিন্টু রঞ্জন দাস (২৪) ও ছোট ছেলে ঝিটু রঞ্জন দাস (২৩), রফিক উল্যার ছেলে মো. মাসুদ (২৪), তার প্রেমিকা মমতাজ আক্তার (১৭)  ও তার মা হাসিনা বেগম কে গ্রেপ্তার করে চরজব্বর থানা পুলিশ। বর্তমানে তারা জেল হাজতে রয়েছে।

 

 



মন্তব্য