kalerkantho


তিল ধারণের ঠাঁই নেই ভোলার মার্কেটগুলোতে

ভোলা প্রতিনিধি    

১৪ জুন, ২০১৮ ১৪:৪৮



তিল ধারণের ঠাঁই নেই ভোলার মার্কেটগুলোতে

ঈদের কেনাকাটায় ভোলার মার্কেটগুলোতে এখন তিল ধারণেরও ঠাঁই নেই। শবে কদরের দিন থেকে সকালে শুরু হয়ে গভীর রাত পর্যন্ত চলছে বেচাকেনা। তৈরি  পোশাক, শাড়ি, এবং পাঞ্জাবির দোকানে এখন ক্রেতাদের উপছেপড়া ভিড়।

বিগত বছরগুলোর তুলনায় এ বছর কেনাকাটা অনেক বেশি বলে মনে করছেন বিক্রেতারা। তবে দুই-একটি পণ্যের দাম বেশি বলে অভিযোগ ক্রেতাদের। এদিকে,  ঈদের বাজার নিরাপত্তায় জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে তিন স্তরের নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে।

ভোলা শহরের প্রাণকেন্দ্র শহরের কে জাহান মার্কেট, জিয়া সুপার মার্কেট, জাহাঙ্গীর প্লাজা, তালুকদার ভবন, চৌধুরী প্লাজা, আমেনা প্লাজা, চক মার্কেট, নবারুন সেন্টারসহ বিভিন্ন  মার্কেটে ক্রেতাদের আগমনে মুখরিত ঈদের বাজার। মার্কেটগুলোতে সব বয়সী ক্রেতাদের সমাগম এখন। নতুন পোশাকের পসরা আর বাহারি চোখ ধাঁধানো আলোক সজ্জায় সাজানো হয়েছে বিপনি বিতানগুলো। ক্রেতা-বিক্রেতাদের উপস্থিতিতে মুখরিত এসব দোকান। এক মার্কেটে শুরু করে আর এক মার্কেটে দাম ও পোশাক যাচাই করে ক্রেতারা তাদের পছন্দের কাপড় কিনছে। 

এ বছর ছেলেদের পাঞ্জাবি, শার্ট ও প্যান্ট বেশি বিক্রি হচ্ছে। অন্যদিকে, মেয়েদের থ্রি-পিস এবং শাড়ির চাহিদা অনেক বেশি বলে জানিয়েছেন বিক্রেতারা। বিভিন্ন নামের এসব পোশাক কিনেই খুশি হচ্ছেন ক্রেতারা। এবার আগাম ঈদের মার্কেটে পছন্দের ভালো পোশাক কিনে খুশি ক্রেতারা।

এদিকে, ঈদের মার্কেটে তিন স্তরের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন পুলিশ সুপার মোকতার হোসেন। তিনি বলেন, মোবাইল টিম থাকবে সার্বক্ষণিক। এ ছাড়া ভোলায় ঈদ পরবর্তী বাসাবাড়ির নিরাপত্তার জন্য জনসচেতনতার জন্য মাইকিং করা হয়েছে। 


মন্তব্য