kalerkantho


বান্দরবানে বৌদ্ধ ভিক্ষু খুনের ঘটনায় আরেক ভিক্ষু গ্রেপ্তার

নিজস্ব প্রতিবেদক, বান্দরবান   

২৭ এপ্রিল, ২০১৮ ০০:৩৩



বান্দরবানে বৌদ্ধ ভিক্ষু খুনের ঘটনায় আরেক ভিক্ষু গ্রেপ্তার

প্রতীকী ছবি

বান্দরবান জেলা সদরে বৃহস্পতিবার ২৬ এপ্রিল ভোর রাতে উ নাইন্দিয়া (৮০) নামের এক বৌদ্ধ ভিক্ষুকে ধারাল দা দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। এ ঘটনায় জড়িত থাকার সন্দেহে পুলিশ সাবিদা নামে এক ভিক্ষুকে গ্রেপ্তার করেছে। তিনি এই বৌদ্ধ বিহারেই থাকতেন।

বান্দরবান সদর থানার ওসি গোলাম সারোয়ার ভিক্ষু খুন ও ১ জনকে আটকের কথা স্বীকার করেছেন।

ওসি জানান, প্রত্যক্ষদর্শীদের দেয়া তথ্য অনুযায়ী অভিযান চালিয়ে পার্শ্ববর্তী একটি রাবার বাগান থেকে তাকে আটক করা হয়। তিনি জানান, হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত ধারালো দা'টিও জব্দ করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার ২৬ এপ্রিল ভোর রাতের কোনো এক সময় বান্দরবান সদর উপজেলার বাকীছড়া মাঝের পাড়া বৌদ্ধ বিহারের পাশের একটি ঘরে হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটে বলে ধারণা করা হচ্ছে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে লাশ উদ্ধার করে এবং ময়না তদন্তের জন্যে বান্দরবান সদর হাসপাতালে মরদেহ পাঠায়।

পাড়ার কার্বারী (পাড়া প্রধান) পাই হ্রী মং (Pai Hri Mong) জানান, বৃহস্পতিবার ভোর ৫টার দিকে সাবিদা ভিক্ষুকে কেয়াং (বৌদ্ধ বিহার) থেকে দৌঁড়ে বের হয়ে যেতে দেখেছে গ্রামবাসী।

তিনি জানান, দু'বছর আগে এই গ্রামেরই বাসিন্দা ভিক্ষুব্রত গ্রহণ করে বিহারে অবস্থান করছেন। তিনি অপ্রকৃতিস্থ ছিল বলে পাড়া প্রধান জানান।

স্থানীয়রা জানান, প্রতিদিনকার মতো পাড়ার দায়করা ভিক্ষুদের 'ছোয়াইং' (খাবার) দিতে গিয়ে হত্যাকাণ্ডের ঘটনা জানতে পারে। পরে বিষয়টি বান্দরবান সদর থানাকে অবহিত করা হয়।

বাকীছড়া মাঝের পাড়া বৌদ্ধ বিহার প্রধান (বিহারাধ্যক্ষ) পান্ডিতা ভিক্ষু জানান, ধর্মীয় কারণে তিনি বুধবার পার্শ্ববর্তী রাজবিলা কেয়াংয়ে ছিলেন। হত্যাকাণ্ডের খবর শুনে তিনি ছুটে এসেছেন। নিহত ও অভিযুক্ত ভিক্ষুর মধ্যে কোনো ধরনের শত্রুতা ছিল না।

বিহারাধ্যক্ষ জানান, বৌদ্ধ বিহারে অনেক মূল্যবান মালামাল এবং নগদ অর্থ থাকলেও এই ঘটনায় কোনো কিছু খোয়া যায়নি।

এদিকে বৃহস্পতিবার বিকেলে বান্দরবান সদর থানার হাজতে আটক থাকা সাবিদা ভিক্ষুকে হত্যাকাণ্ড বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি কোনো জবাব দেননি। তবে ওসি গোলাম সারোয়ার বলেছেন, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সে পুলিশের কাছে হত্যাকাণ্ড ঘটানোর কথা স্বীকার করেছে। ওসি জানান, এ ব্যাপারে বান্দরবান থানায় একটি খুনের মামলা রুজু করা হয়েছে।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ইয়াসির আরাফাত বলেছেন, হত্যাকাণ্ডের মোটিভ বা এর সঙ্গে সাবিদা ভিক্ষু ছাড়া আর কেউ জড়িত ছিল কিনা- সে বিষয়ে পুলিশ তদন্ত করছে। 



মন্তব্য