kalerkantho


নাইক্ষ্যংছড়িতে তামাকচাষী অপহরণ ঘটনায় দস্যু বাহিনীর আটক ২

নিজস্ব প্রতিবেদক, বান্দরবান   

২৪ এপ্রিল, ২০১৮ ২২:৫০



নাইক্ষ্যংছড়িতে তামাকচাষী অপহরণ ঘটনায় দস্যু বাহিনীর আটক ২

বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি থেকে তামাকচাষী অপহরণ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে গত দুই দিনে দুইজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। তারা দুইজনই আনোয়ার বাহিনীর সদস্য। এর আগে পুলিশ আনোয়ার বাহিনীর সদস্য সেলিম ও সালামকে আটক করে। বর্তমানে ২/৩ জন সঙ্গী নিয়ে আনোয়ার বাহিনী কোনঠাসা হয়ে আছে।

জানা গেছে, গত ১৭ এপ্রিল রাতে সংঘটিত এই অপহরণ ঘটনার পরপরই পুলিশ বিশেষ অভিযানে নামে। পুলিশ সুপার জাকির হোসেন মজুমদার এবং অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (বিশেষ শাখা) আলী হোসেনের তত্বাবধানে বিশেষ অভিযান পরিচালিত হচ্ছে।

বাইশারি পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের উপ-পুলিশ পরিদর্শক আবু মুসা বলেন, গ্রেপ্তারকৃতদের পাওয়া তথ্য অনুযায়ী পুলিশ আনোয়ার বাহিনী প্রধানের অবস্থান সম্পর্কে নিশ্চিত হয়েছে। যেকোনো সময় তাকেও কব্জায় নিয়ে আসা সম্ভব হবে।

আবু মুসা জানান, রবিবার রাতে কক্সবাজার জেলার রামু উপজেলাধীন বড়বিল এলাকায় নিজ বাড়ি থেকে নুরুল হাকিমকে আটক করার পর তাকে জিজ্ঞাসাবাদে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে সোমবার দিবাগত রাতে রামু উপজেলার জোয়ারিয়ানালা নন্দাখালি গ্রামে বোনের বাড়ি থেকে শফিউল আলমকে গ্রেপ্তার করা হয়। তার বাড়িও রামু উপজেলার বড়বিল এলাকায়।

নির্ভরযোগ্য একটি সূত্র জানায়, পুলিশ নিশ্চিত হয়েছে যে বাইশারি বাজার লাগোয়া কক্সবাজার জেলার রামু উপজেলাধীন গর্জনিয়া বড়বিল এলাকার লোকজন এবং তাদের পরিবারের সদস্যরা পুলিশের তৎপরতার খবর আগাম জানিয়ে দেওয়ায় সন্ত্রাসবিরোধী অভিযানগুলো ব্যর্থ হয়েছিল। 

সূত্র আরো জানায়, ডাকাত সর্দার আনোয়ার বাইশারি এলাকার বাসিন্দা হলেও তার বাহিনীতে কৌশলগত কারণে কক্সবাজার জেলার রামু, চকরিয়া এবং বান্দরবান জেলার লামা ও আলীকদমের লোকদের রিক্রুট করা হয়। তারা ডাকাতি, ছিনতাই, অপহরণ এবং রাবার গাছ কেটে ফেলার ভয় দেখিয়ে রাবার বাগান মালিকদের কাছ থেকে চাঁদা আদায় করে আসছিল।

পুলিশের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে, পৃথক পৃথক অভিযানে আনোয়ার বাহিনীর কয়েকজন আটক করার মধ্যে দিয়ে পুলিশ এই দস্যু বাহিনীর নেটওয়ার্ক তছনছ করে দিতে সমর্থ হয়েছে। একইসঙ্গে চলমান এই অভিযানে যেকোনো সময় আনোয়ার বাহিনীর প্রধানকেও আইনের আওতায় নিয়ে আসার ব্যাপারে  আশাবাদী পুলিশ।

উল্লেখ্য, গত ১৭ এপ্রিল তামাক ক্ষেতের পাশের খামার বাড়ি থেকে সন্ত্রাসীরা সাইফুল নামের এক তামাক চাষিকে অপহরন করে। ঘটনার ৫দিন পর ৭০ হাজার টাকা মুক্তিপণ পরিশোধ করে সাইলকে মুক্ত করা হয়। 

 



মন্তব্য