kalerkantho


অশ্রুসিক্ত নয়নে পিয়াসকে বিদায় জানাল চিরচেনা ক্যাম্পাস

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি    

২৩ মার্চ, ২০১৮ ১৩:১১



অশ্রুসিক্ত নয়নে পিয়াসকে বিদায় জানাল চিরচেনা ক্যাম্পাস

পিয়াসের লাশবাহী অ্যাম্বুলেন্স আসে তার ক্যাম্পাসে

অশ্রুসিক্ত নয়নে পিয়াসকে চিরবিদায় জানালেন গোপালগঞ্জ শেখ সায়েরা খাতুন মেডিকেল কলেজের শিক্ষক, সহপাঠি ও শিক্ষার্থীরা। গত শুক্রবার দিবাগত রাত সাড়ে ১২টার সময় আলিফ মেডিকেলের একটি লাশবাহী অ্যাম্বুলেন্সে করে পিয়াসের লাশ আনা হয় তার চিরচেনা গোপলগঞ্জের শেখ সায়েরা খাতুন মেডিকেল কলেজ ক্যাম্পাসে। এ সময় আগে থেকে অপেক্ষমান শিক্ষক, সহপাঠি ও শিক্ষার্থীরা পিয়াসের কফিন দেখে আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন। 

পিয়াসের লাশবাহী গাড়িতে পিয়াসের বাবা সুখেন্দু বিকাশ রায় ছিলেন। তিনিও ছিলেন অশ্রুসজল। একমাত্র ছেলেকে হারিয়ে তিনি শোকে পাথর হয়ে গেছেন। শুধু কাঁদেন। কথা বলার শক্তি হারিয়েছেন তিনি। 

পিয়াসের লাশের কফিন একনজর দেখার জন্য ভীড় করেন শিক্ষক, সহপাঠি ও শিক্ষার্থীরা। অ্যাম্বুলেন্স থেকে লাশবাহী কফিন নামানো হয় তার চিরচেনা ক্যাম্পাসে। 

সেখানে শেখ সায়েরা খাতুন মেডিকেল কলেজের পক্ষে পিয়াস রায়ের কফিনে কলেজের সহযোগী অধ্যাপক ডা. সুভাষ চন্দ্র ভাদুরী ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান। এ সময় মেডিকেল কলেজের সহকারী অধ্যাপক ডা. আব্দুল্লাহ আল মাহমুদসহ অন্যান্য শিক্ষকরা উপস্থিত ছিলেন। পরে মেডিকেল কলেজের শিক্ষার্থীদের পক্ষে পিয়াসের কফিনে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানো হয়।

শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে আত্মার শান্তি কামনায় ১ মিনিট নিরবতা পালন ও ধর্মীয় অনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করা হয়। পরে রাত ১টায় পিয়াসের লাশবাহী গাড়িটি তার বাড়ি বরিশালের উদ্দেশে রওনা হয়।

গত ১২ মার্চ কাঠমান্ডুর ত্রিভুবন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণকালে বিধ্বস্ত হয় ইউএস-বাংলার ফ্লাইট বিএস২১১। এতে নিহত হন ৪৯ জন। তাদের মধ্যে ২৬ জনই বাংলাদেশি। এদের মধ্যে একজন গোপালগঞ্জ শেখ সায়েরা খাতুন মেডিকেল কলেজের মেধাবী শিক্ষার্থী পিয়াস রায়। সে এমবিবিএস ফাইনাল পরীক্ষা শেষে নেপাল ঘুরতে গিয়েছিলেন।
  
নিহত পিয়াস রায় বরিশাল শহরের আব্দুল গফুর সড়কের সুখেন্দু বিকাশ রায়ের ছেলে।



মন্তব্য