kalerkantho


সৎ মায়ের সহযোগিতায় কিশোরীর সর্বনাশ করল মামা

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ২০:২৪



সৎ মায়ের সহযোগিতায় কিশোরীর সর্বনাশ করল মামা

টাঙ্গাইলের সখীপুরে মামার বিরুদ্ধে কিশোরী ভাগনীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। হাসান (১৯) নামের ওই মামা অষ্টম শ্রেণিতে পড়ুয়া কিশোরীর সৎ মা রোজিনা আক্তারের সহোদর ভাই।

হাসান রাতে একা ঘরে থাকলে স্বপ্নে তাকে ‘বোবায়’ ধরে এমন অজুহাতে রোজিনা তার সৎ মেয়েকে একই ঘরেই থাকার জন্য অনুরোধ করে। ওই সুযোগে সে মেয়েটিকে ধর্ষণ করে। এভাবে মাঝে মধ্যেই মেয়েটিকে ধর্ষণ করে হাসান। একপর্যায়ে মেয়েটি অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়ে।

এলাকায় কানাঘুষা শুরু হলে মেয়েটিকে গৃহবন্দি করে রাখে সৎ মা রোজিনা। মেয়েটি এখন ৮ মাসের (৩৩ সপ্তাহ) অন্তঃসত্ত্বা বলে আল্ট্রাসনোগ্রামের মাধ্যমে নিশ্চিত করেছে স্থানীয় একটি ক্লিনিকের চিকিৎসক। এ ঘটনায় গত শুক্রবার রাতে মেয়েটির চাচা বাদী হয়ে ধর্ষণে সহযোগিতায় সৎমা রোজিনা আক্তার ও ধর্ষক মামা হাসানের (১৯) বিরুদ্ধে মামলা করেছেন। হাসান উপজেলার কচুয়া দক্ষিণপাড়া গ্রামের আবদুর রহিমের ছেলে।

ওই কিশোরীর পরিবার ও মামলার বিবরণ সূত্রে জানা যায়, প্রায় আট বছর আগে মেয়েকে রেখে তার মা অন্যত্র বিয়ে করে চলে যান। মেয়েটির বাবা প্রায় চার বছর আগে রোজিনাকে বিয়ে করে সৌদি আরব চলে যান। বাড়িতে পুরুষ মানুষ না থাকায় সৎমা রোজিনা আক্তার দুই বছর আগে তার ভাইকে বাড়িতে আনেন। 

মেয়েটির চাচা অভিযোগ করেন, প্রায় চার মাস ধরে বিষয়টি জানাজানি হলেও হাসান ও তার বোন বিষয়টি পাত্তা দিতো না। এখন রোজিনা ও তার ছোট ভাই হাসান মেয়েটিকে ফেলে রেখে বাবার বাড়ি চলে গেছে। মেয়েটি স্থানীয় একটি মাদরাসায় অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে সখীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নাজমুল হক ভুঁইয়া বলেন, শুক্রবার রাতে মেয়ে ও মেয়ের চাচা থানায় হাজির হয়ে একটি মামলা করেছেন। অন্তঃসত্ত্বার বিষয়ে মেয়েটিকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হবে বলে তিনি জানান।



মন্তব্য