kalerkantho


ট্যুর গাইডের প্রতারণার শিকার ৫২ মেডিক্যাল শিক্ষার্থী

নিজস্ব প্রতিবেদক, কক্সবাজার   

২০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ২৩:২৩



ট্যুর গাইডের প্রতারণার শিকার ৫২ মেডিক্যাল শিক্ষার্থী

রাজধানী ঢাকার ইউএস বাংলা মেডিক্যাল কলেজের ৫২ শিক্ষার্থী একটি অনলাইন ভিত্তিক ট্যুর গাইডের প্রতারণার শিকার হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। 'স্বপ্ন ঘুড়ি' নামের একটি অনলাইনের প্রতারণার শিকার হওয়া বেসরকারি মেডিক্যাল কলেজের শিক্ষার্থীরা কক্সবাজারে এসে বিপাকে পড়েন। এসব শিক্ষার্থীদের পাশে দাঁড়িয়েছে ট্যুরিস্ট পুলিশ। পুলিশের সহায়তায় ভ্রমণের আনন্দের স্বাদ মিটিয়ে নেন শিক্ষার্থীরা।

ইউএস বাংলা মেডিক্যাল কলেজের শিক্ষার্থীরা জানান, তারা এই অনলাইন ভিত্তিক ট্যুর গাইডের মাধ্যমে কক্সবাজারে শিক্ষা সফরে আসে। ৫২ জন শিক্ষার্থীর ৪ দিনের ট্যুরে থাকা, খাওয়া এবং যানবাহনের সুবিধার ভিত্তিতে ২,৬৯,০০০ টাকায় তাদের মধ্যে চুক্তি হয়। প্রথম দিন থাকবে কক্সবাজারে, ২য় দিন সেন্টমার্টিন ট্যুর, ৩য় দিন ইনানী হিমছড়ি, ৪র্থ দিন ডুলহাজরা সাফারি পার্কে তাদের বেড়াতে নিয়ে যাওয়ার কথা।

শিক্ষার্থীদের অভিযোগে জানা যায়,  ট্যুর গাইড ঢাকা থেকে আসার সময় তাদের খুব নিম্ন মানের গাড়িতে করে কক্সবাজারে নিয়ে আসে। যা আসার পথে ৩ বার নষ্ট হয় গাড়িটি। ২য় দিন সেন্টমার্টিন নিয়ে যাওয়ার কথা বললেও গাড়ির সমস্যায় ট্যুর গাইড যথাসময়ে তাদের টেকনাফের সেন্টমার্টিন ঘাটে নিয়ে যেতে না পারায় তারা আর সেন্টমার্টিন দ্বীপে যেতে পারেনি।

অভিযোগ পেয়ে কক্সবাজার ট্যুরিস্ট পুলিশ দায়িত্ব নিয়ে ৩য় দিন ট্যুর গাইডের মাধ্যমে তাদের ইনানী হিমছড়ি ভ্রমণে নিয়ে যায়। কিন্তু মঙ্গলবারে সাফারী পার্ক বন্ধ থাকে। যা ট্যুর গাইড নিজেই জানে না। ফলে ৪র্থ দিন ডুলাহাজরা সাফারি পার্কে যাওয়া হলনা।  

ট্যুরিস্ট পুলিশের অতিরিক্তি পুলিশ সুপার রায়হান কাজেমী ট্যুর গাইড এবং শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলে সাফারি পার্কের বদলে সেন্টমার্টিন যাওয়ার জন্য টেকনাফ যাওয়ার ২টি ট্যুরিস্ট বাস ভাড়া করে ট্যুর গাইডকে ভাড়া প্রদান করতে বাধ্য করেন। রায়হান কাজেমী জাহাজের ম্যানেজারের সঙ্গে কথা বলে ২য় দিনের টিকেট দিয়ে ৪র্থ দিনে বিনা ভাড়ায় ৫২ জন শিক্ষার্থীকে সেন্টমার্টিন ভ্রমণের ব্যবস্থা করে দেন।

পুরাতন বাস বাদ দিয়ে ইউনিক পরিবহনের নতুন একটি বাসে করে ৪০ জন শিক্ষার্থীর ঢাকা যাওয়ার ব্যবস্থা করেন এবং ১২ জনকে শ্যামলী পরিবহনে করে ঢাকা যাওয়ার ব্যবস্থা করে ট্যুর গাইডকে ভাড়া প্রদান করতে বাধ্য করেন। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রায়হান কাজেমী জানান, পর্যটক অনলাইন ভিত্তিক ট্যুর গাইডের মাধ্যমে ভ্রমণ করার আগে ভালো ভাবে খোঁজ নিতে হবে। তিনি ভ্রমণের পুর্বে ট্যুরিস্ট পুলিশের নাম্বার মোবাইলে সেইভ করে রাখতে অনুরোধ করেন।


মন্তব্য