kalerkantho


জেলা পরিষদের জায়গা নিয়ে জালিয়াতির অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ১৯:০০



জেলা পরিষদের জায়গা নিয়ে জালিয়াতির অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন

জেলা পরিষদের জায়গা ইজারা দেওয়ার নাম করে দুই লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগে রফিকুল ইসলাম ভুট্টু নামের এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন করেছে প্রতারণার শিকার জুয়েল হোসেন নামের এক প্রবাসী। আজ মঙ্গলবার বেলা ১২টায় জয়পুরহাট প্রেসক্লাবে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। এ সময় জুয়েল হোসেন ছাড়াও ভগ্নিপতি হাবিবুর রহমান ও মামা সাদ্দাম হোসেন উপস্থিত ছিলেন। 

জুয়েল হোসেন লিখিত বক্তব্যে অভিযোগ করেন, জেলা পরিষদের একটি জায়গা স্থায়ী ইজারা দেওয়ার কথা বলে ছোট ভাই উজ্জল হোসেনের নামে গত ২০১৫ সালের ২০ অক্টোবর ২ লাখ টাকা হাতিয়ে নেন জয়পুরহাট শহরের আরাফাত নগর এলাকার রফিকুল ইসলাম ভুট্টু। পরে তিনি ৩০০ টাকার জুডিশিয়াল ষ্ট্যাম্পে ২০১৫ সালের ৬ ডিসেম্বরে জেলা পরিষদের তৎকালীন প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ হোসেন এর স্বাক্ষরিত আক্কেলপুর উপজেলার মোহনপুর মৌজার ৯০ বর্গফুট জায়গার ইজারানামা বাড়িতে পৌঁছে দেন। কিন্তু জেলা পরিষদের নামে সরবরাহ করা ওই ইজারানামা মুলে ছোট ভাই উজ্জল জায়গাটি দখল না পেয়ে রফিকুলকে দুই লাখ টাকা ফেরত দেওয়ার দাবি জানায়। কিন্তু দিব দিচ্ছি করে রফিকুল টাকা ফেরত না দিলে গত ১৭ জানুয়ারী জুয়েল হোসেন তার জয়পুরহাটের বাসায় গিয়ে টাকার দাবি জানায়। সেখানে রফিকুল টাকা না দিয়ে কয়েকজন ভাড়াটিয়াকে নিয়ে জোরপূর্ব্বক ১০০ টাকার তিনটি ফাঁকা ষ্ট্যাম্পে জুয়েলের কাছ থেকে স্বাক্ষর আদায় করেন। এ ঘটনায় তার বিরুদ্ধে জুয়েল আদালতে মামলা করলে রফিকুল সাদা ষ্ট্যাম্পে ২০ লাখ টাকা পাওনার দাবি করে ষ্ট্যাম্পগুলি আদালতে দাখিল করেন। 

সংবাদ সম্মেলনে জুয়েল দাবি করেন, প্রকৃত অর্থে রফিকুলের সাথে তার কোনো ব্যবসায়ী সম্পর্ক নেই। প্রতারণা করে হাতিয়ে নেওয়া তার দুই লাখ টাকা না দেওয়ার জন্য জোর করে সাদা ষ্ট্যাম্পে স্বাক্ষর নিয়ে রফিকুল তার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করছেন। তিনি এ ঘটনার সুষ্ঠ তদন্তের মাধ্যমে রফিকুলের শাস্তি দাবি করেন। 

তবে রফিকুল এসব অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ‘জুয়েল এর কাছ থেকে তিনি ২০ লাখ টাকা পাবেন। সেটা না দেওয়ার জন্য সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে জুয়েল তার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করছেন। যা আদৌ সত্য নয়।



মন্তব্য