kalerkantho


বাসে অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে পুলিশ কর্মকর্তা

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ০৩:০৪



বাসে অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে পুলিশ কর্মকর্তা

প্রতীকী ছবি

'হাতে একটা বই দিয়ে পড়তে বলে। কিছুক্ষণ পর ভিন্ন প্রসঙ্গে কথা বলে। পানির বোতল কিনতে চাইলে হাতে হালুয়া জাতীয় একটা কিছু ধরিয়ে দিয়ে বলে, 'স্যার, খালি পানি খাবেন। হালুয়াটা খেয়েই পানি পান করেন। হালুয়া খাওয়ার কিছুক্ষণ পরই ঘুমিয়ে পড়ি।'

কথাগুলো বলছিলেন বাসে অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে পড়ে হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়ে বেঁচে যাওয়া পুলিশের উপপরিদর্শক মোহাম্মদ সোহাগ। ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি এই পুলিশ কর্মকর্তা গতকাল সোমবার সন্ধ্যায় টেলিফোনে কালের কণ্ঠকে কথাগুলো বলেন। তিনি মাদারীপুর জেলার শিবচর থানাধীন দত্তপাড়া তদন্তকেন্দ্রে কর্মরত।

এসআই সোহাগ বলেন, বই বিক্রেতা বেশে বাসে ওঠা ফেরিওয়ালার কথা বিশ্বাস করে তিনি হালুয়া খেয়ে ভুল করেছেন। ওই ফেরিওয়ালা আসলে অজ্ঞান পার্টির সদস্য ছিল। তার খপ্পরে পড়েন তিনি। ওই এসআই দাবি করেন, ওই লোকটি সংঘবদ্ধ অজ্ঞান পার্টির সদস্য হতে পারে। তাঁকে নেশাদ্রব্য খাইয়ে সঙ্গে থাকা এক লাখ টাকা, হাতে থাকা একটি স্বর্ণের আংটি ও একটি মোবাইল ফোনসেট নিয়ে গেছে সে।

এত টাকা সঙ্গে নিয়ে কেন গভীর রাতে ঢাকায় আসছিলেন জানতে চাইলে ওই পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, অফিস থেকে ছুটি নিয়ে তিনি দুলাভাইয়ের কাছ থেকে ধার নেওয়া টাকা ফেরত দিতে আসছিলেন; কিন্তু এভাবে বিপদে পড়বেন ধারণা ছিল না। এরা সুযোগসন্ধানী দুর্বৃত্ত। মানুষকে নেশাজাতীয় কিছু খাইয়ে কাছে থাকা সব কিছু লুটে নেয়। এরা নীরব ঘাতক।

পরিবারের লোকজন জানায়, গত রবিবার রাত সাড়ে ১২টার দিকে ফরিদপুর থেকে ঢাকার উত্তরা এলাকার ভগ্নিপতির বাসায় আসছিলেন এসআই সোহাগ। পথে তিনি অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে পড়েন। পরে বাসের ভেতরে থাকা অন্য যাত্রীরা তাঁকে অজ্ঞান অবস্থায় ঢাকা মেডিক্যালে ভর্তি করে। বর্তমানে তিনি কিছুটা সুস্থ। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, তাঁর পুরোপুরি সুস্থ হতে সময় লাগবে।

সোহাগের নিকট আত্মীয় আহসান বলেন, সোহাগের বাসা মাদারীপুর সদরে। তিনি মাওয়া থেকে 'গ্রেট বিক্রমপুর' পরিবহনে ঢাকায় আসার পথে অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে পড়েন।


মন্তব্য