kalerkantho


নির্যাতনের বিচার না পেয়ে প্রতিবন্ধির আত্মহত্যা

দাউদকান্দি(কুমিল্লা) প্রতিনিধি   

২৩ জানুয়ারি, ২০১৮ ২২:৫১



নির্যাতনের বিচার না পেয়ে প্রতিবন্ধির আত্মহত্যা

শশুর বাড়ির লোকদের হাতে নির্যাতনের বিচার না পেয়ে বিষপানে আত্মহত্যা করেছেন তিন সন্তানের জনক এক বুদ্ধি প্রতিবন্ধি। গতকাল সোমবার রাতে কুমিল্লার দাউদকান্দি উপজেলার মারুকা ইউনিয়নের ওজারখোলা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। আজ মঙ্গলবার দুপুরে দাউদকান্দি মডেল থানা পুলিশ তার মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মর্গে প্রেরণ করেছেন। এদিকে এ ঘটনার পর থেকে শ্যালকের  দুই ছেলে  গা-ঢাকা দিয়েছে।

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, দাউদকান্দি উপজেলার পাচগাছিয়া ইউনিয়নের তুলাতুলি গ্রামের দিদার মিয়ার একমাত্র ছেলে মানসিক বুদ্ধি প্রতিবন্ধি আব্দুল কাদির ১২ বছর বয়স থেকে মামার বাড়ি ওজার খোলা গ্রামে চলে আসে এবং স্থানীয় চক্রতলা বাজারে চায়ের দোকানে কাজ শুরু করে। ২০ বছর বয়সে ওই গ্রামের মৃত রশিদ মিয়ার প্রতিবন্ধি মেয়ে পিয়ারা বেগমকে বিয়ে করেন। শশুর বাড়ির পক্ষ থেকে তিন কাঠা জমির উপর বাড়ি করে দেয় তাকে। তার তিন ছেলের সবাই জন্ম থেকেই প্রতিবন্ধি। 

এলাকাবাসী জানান, গত ১৮ জানুয়ারী শ্যালক হোসেন মোল্লার ছেলে কামাল ও জামাল প্রতিবন্ধি আব্দুল কাদিরের ঘরে এসে তাকে এবং তার বড় ছেলেকে মারধর করে। তিন দিন যাবৎ এলাকার মাতাব্বরদের কাছে ঘুরে বিচার না পেয়ে ২২ জানুয়ারি সোমবার রাতে নিজ ঘরে বিষপানে আত্মহত্যা করে । 

এ বিষয়ে স্থানীয় ইউপি সদস্য জাকির মেম্বার জানান, প্রতিবন্ধি আব্দুল কাদির সহজ সরল মানুষ ছিলেন। যে কোন কাজের কথা কেউ বললে কখনো না করতো না যে যা দিত তা দিয়েই সে সংসার চালাত। হোসেন মোল্লার ছেলেরা তাকে মেরেছে এ কথা সে আমাকে জানানোর পর গতকাল বৈঠক হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু এলাকার এক মুড়ব্বি ইন্তেকাল করায় আর বৈঠক করতে পারিনি। আজ সকালে শুনি সে আত্মহত্যা করেছে।   
 
এ ব্যাপারে দাউদকান্দি মডেল থানার উপ-পরিদর্শক আমিনুল ইসলাম জানান, খবর পেয়ে আমরা তার মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লায় প্রেরণ করেছি। আর শ্যালকের ছেলেরা ৩ দিন আগে মারধর করেছে বলে অনেকেই জানান। তবে ময়নাতদন্তের রিপোর্ট না পাওয়া পর্যন্ত কিছু বলা যাবে না।  এব্যাপারে ইউডি মামলা হয়েছে।



মন্তব্য