kalerkantho


ভারতের সুপ্রিম কোর্টে ফেলানী হত্যার রীটের শুনানি অনুষ্ঠিত

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি   

১৮ জানুয়ারি, ২০১৮ ২১:৪৫



ভারতের সুপ্রিম কোর্টে ফেলানী হত্যার রীটের শুনানি অনুষ্ঠিত

ফাইল ছবি

ফেলানী হত্যার বিচার চেয়ে ভারতের সুপ্রিম কোর্টে দায়ের করা দু'টি রীট মামলার শুনানি অনুষ্ঠিত হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার ভারতের সুপ্রিম কোর্টের ৯নং আদালতে ফেলানীর বাবা নুরুল ইসলামের দায়ের করা রীটের এই শুনানি অনুষ্ঠিত হয়। বিজ্ঞ বিচারপতি রামায়ন ও বিজ্ঞ বিচারপতি অমিতাভ রায়ের যৌথ বেঞ্চে শুনানির পর রাষ্ট্রপক্ষ হলফনামা দাখিল করার জন্য তিন সপ্তাহ সময় প্রার্থনা করলে আদালত তা মঞ্জুর করে। 

এর আগে গত বছর দু’দফা শুনানির তারিখ পিছিয়ে যায়। কুড়িগ্রামের পাবলিক প্রসিকিউটর ও ফেলানী হত্যা মামলায় বাদীপক্ষকে সহায়তাকারী আইনজীবী অ্যাডভোকেট আব্রাহাম লিংকন এই খবরের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।  

ফেলানীর হত্যা বিচার চেয়ে প্রথম রিট আবেদন করেন ভারতের বিশিষ্ট আইনজীবী অপর্না ভাট। পরবর্তীতে ফেলানীর বাবা নুরুল ইসলাম নুরু’র অনুরোধে ভারতের মানবাধিকার সুরক্ষা মঞ্চ (মাসুম) ভারতের সুপ্রীম কোর্টে অপর রীটটি দায়ের করেন। 

২০১১ সালের ৭ জানুয়ারি অনন্তপুর সীমান্তে ফেলানী খাতুন বাংলাদেশ ভারত সীমান্তের আর্ন্তজাতিক সীমানা পিলার নং ৯৪৭ এর কাছে বিএসএফ সদস্য অমিয় ঘোষের গুলিতে নির্মমভাবে নিহত হয়। এ ঘটনার পর বিএসএফ তাদের আদালতে অমিয় ঘোষকে অভিযুক্ত করে একটি অভিযোগ গঠন করে। ২ বছর ৮ মাস পর ২০১৩ সালের ৬ সেপ্টেম্বর অভিযুক্ত অমিয় ঘোষকে নির্দোষ রায় দেন বিএসএফ এর আদালত। সেই রায় যথার্থ মনে করেনি বিএসএফ মহাপরিচালক। 

তিনি রায় পুর্নবিবেচনার আদেশ দিয়েছিলেন। এরপর ২ জুলাই ২০১৫ বিএসএফ কোর্ট অভিযুক্ত অমিয় ঘোষকে আবারও  নির্দোষ বলে পুনরায় রায় দেন। এ ব্যাপারে ভারতীয় মানবাধিকার সংস্থা মাসুম’কে উচ্চ আদালতে মামলাসহ প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহন করার অনুরোধ করেন ফেলানীর বাবা নুরুল ইসলাম নুরু। এর আগে মহিলা আইনজীবী সমিতির সহায়তায় আরো একটি রীট দাখিল করা হয় সুপ্রিম কোর্টে। আদালত দুটি রীটকেই শুনানির জন্য গ্রহন করেন। 


মন্তব্য