kalerkantho


রাজীবপুর সোনালী ব্যাংক থেকে ১০ লাখ টাকা উধাও!

রৌমারী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি   

১৭ জানুয়ারি, ২০১৮ ২৩:১১



রাজীবপুর সোনালী ব্যাংক থেকে ১০ লাখ টাকা উধাও!

কুড়িগ্রামের রাজীবপুর সোনালী ব্যাংক থেকে ১০ লাখ টাকা উধাও হওয়ার ঘটনা ঘটেছে। গ্রামীণ বাংকের ম্যানেজার ফরিদ আহমেদ টাকা উঠানোর জন্য সোনালী ব্যাংক শাখায় ১০ লাখ টাকার একটি চেক দেন। সোনালী ব্যাংকের ক্যাশিয়ার আব্দুল মজিদ ক্যাশ থেকে ওই ১০ লাখ টাকা গুনে গ্রামীণ ব্যাংকের ম্যানেজারের হাতে দেন বলে দাবি করেন। অপরদিকে গ্রামীণ ব্যাংকের ম্যানেজার বলছেন আমাকে টাকা না দিয়েই ক্যাশিয়ার বলছেন আপনি টাকা ক্যাশ টেবিল থেকে গুনে গুনে নিয়েছেন। পাল্টাপাল্টি দোষারোপের ওই ঘটনাটি ঘটে আজ বুধবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকের ঘটনা এটি। যা রাত সাড়ে ১০টা পর্যন্ত সমাধান হয়নি বলে জানা গেছে।

এদিকে সোনলী ব্যাংকের ক্যাশ টেবিল থেকে ১০ লাখ টাকা উধাও হওয়ার ঘটনায় গ্রামীণ ব্যাংকের শেরপুর জোনাল ম্যানেজার তাজুল ইসলাম ওই দিনই রাত ৯টার দিকে রাজীবপুরে পৌঁছেন। অপরদিকে সোনালী ব্যাংকের শেরপুর জোনের জেনারেল ম্যানেজার (জিএম) রাতে রাজীবপুর সোনালী ব্যাংকে পৌছানোর কথা বলে জানিয়েছেন ব্যাংক ম্যানেজার সাইদুর রহমান। ১০ লাখ টাকা নিয়ে পাল্টাপাল্টি দোষারোপের ঘটনাটি এলাকায় ব্যাপক চাঞ্জল্যের সৃষ্টি করেছে।

রাজীবপুর গ্রামীণ ব্যাংকের ম্যানেজার ফরিদ আহমেদ বলেন, ১০ লাখ টাকার চেক অনুমোদনের পরে ক্যাশিয়ারের কাছে জমা হওয়ার পর আমি টাকা চাইলে তিনি বলেন আপনি চলে যান। আপনাকে টাকা দিয়েছি। এসময় হট্টগোলের সৃষ্টি হয়। ওই সময়ে ব্যাংকে আরো গ্রাহক উপস্থিত ছিলেন। বিষয়টি প্রত্যক্ষ করেছেন ব্যাংকের অন্য স্টাফরাও।

অপরদিকে সোনালী ব্যাংকের ক্যাশিয়ার আব্দুল মজিদ বলেন, ওনাকে ১০ লাখ টাকা দেয়ার পর সেটা ব্যাগে রাখেন এবং ব্যাংক থেকে চলে যান। ১০ মিনিট পর ফিরে এসে আবারো ১০ লাখ টাকার দাবি করেন। এঘটনায় ওই দিন রাত সাড়ে ১০টা পর্যন্ত ব্যাংকে দেনদরবার চলছিল।

ঘটনা জানার পর গ্রামীণ ব্যাংকের শেরপুর জোনের জোনাল ম্যানেজার রাজীবপুরে রাতেই উপস্থিত হন। এসময় তিনি বলেন, গ্রামীণ ব্যাংকের কর্মী টাকা নিয়ে না করবে এমন ঘটনা আমরা বিশ্বাস করি না। সোনালী ব্যাংকের ক্যাশিয়ার পূর্বের একটি ঘটনার জের ধরে এই নাটক সাজিয়েছে।

সোনালী ব্যাংক রাজীবপুর শাখার ম্যানেজার সাইদুর রহমানা বলেন, আমার ক্যাশিয়ার তো বলছে টাকা দিয়ে দিয়েছেন। আসলে কার ভুল বা কে মিথ্যা কথা বলছে সেটা নিয়ে আমার উর্দ্বতন কর্তৃপক্ষ বসে সমাধান করে দিবেন।

 



মন্তব্য