kalerkantho


ঝালকাঠিতে উন্নয়ন মেলা

ঝালকাঠি প্রতিনিধি    

১২ জানুয়ারি, ২০১৮ ১৭:২৬



ঝালকাঠিতে উন্নয়ন মেলা

কেউ ঘোড়ার পিঠে চড়ে প্রাচীন সভ্যতার রাজ্য ঘুরে বেড়াচ্ছে। কেউ আবার দোলনায় দুলছে, হাওয়ায় ভাসছে। কারো হাতে বঙ্গবন্ধুর জীবনী। খেলার পাশাপাশি তারা পড়ছে বই। ঝালকাঠি শেখ রাসেল মিনি স্টেডিয়ামে উন্নয়ন মেলায় বঙ্গবন্ধু শিশু কর্নারে এভাবে খেলার আনন্দে মেতে ওঠে শিশুরা।

শিশু কর্নারটিতে রয়েছে কাঠের নকশায় তৈরি বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি ও ছবি। উন্নয়ন মেলার আনন্দে উচ্ছ্বসিত শিশুরা উৎসবে মাতোয়ারা। এমন আনন্দ আগে কখনো উপভোগ করেনি তারা। আজ বৃহস্পতিবার শুরু হওয়া উন্নয়ন মেলা চলবে টানা তিন দিন। এই তিন দিনই নানা ধরনের আয়োজন রয়েছে শিশুদের জন্য। 

আরো পড়ুন পাঁচ বছর পরে বাংলাদেশ উন্নত দেশের দিকে এগিয়ে যাবে 

আয়োজকরা জানিয়েছেন, ঝালকাঠিতে এই প্রথম অনেক বৃহৎ  পরিসরে উন্নয়ন মেলা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। মেলাকে ঘিরে স্থানীয় শেখ রাসেল মিনি স্টেডিয়ামকে সাজানো হয়েছে বর্ণিল সাজে। ১০০ স্টলে রয়েছে সরকারের উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডের নানা ডকুমেন্টারি। আগামী পরিকল্পনা ও সম্ভাবনার কথাও বলা হচ্ছে মেলার স্টলের সাউন্ড বক্সে। মেলায় প্রবেশ করতেই যে কারো চোখ আটকে যাবে শিশুদের মিলন মেলা দেখে। সবচেয়ে আকর্ষণীয় করে সাজানো হয়েছে শিশুদের জন্য খেলার এই স্থানটিকে। এটির নাম দেওয়া হয়েছে বঙ্গবন্ধু শিশু কর্নার। 

আরো পড়ুন সমান দামে ইন্টারনেট দেওয়া উচিত: মোস্তাফা জব্বার 

গত দুই দিন ধরে এই কর্নারে শিশুরা এসে খেলায় মেতে ওঠে। পাশে দাঁড়িয়ে নিজের সন্তানের এমন উচ্ছ্বসিত আনন্দ উপভোগ করেন অভিভাবকরা। দর্শনার্থীরাও শিশু কর্নারে একবারের জন্য হলেও ঘুরে যাচ্ছেন।

ঝালকাঠির জেলা প্রশাসক মো. হামিদুল হক বলেন, 'বঙ্গবন্ধু একজন শিশুপ্রেমী মানুষ ছিলেন। তাই উন্নয়ন মেলায় বঙ্গবন্ধু শিশু কর্নারটি করা হয়েছে। এখানে শিশুরা বিনোদন পাচ্ছে। নানা ধরনের খেলনা রাখা হয়েছে, আছে বঙ্গবন্ধুর আত্মজীবনীমূলক বই। শিশুরা এখান থেকে জ্ঞান অর্জন করতে পারছে। শিশুদের আনন্দ দিতে পেরে ভালো লাগছে। ভবিষ্যতে এ ধরনের আয়োজন অব্যাহত রাখা হবে।'  



মন্তব্য