kalerkantho


জমি নিয়ে বিরোধ

ঝালকাঠিতে প্রতিপক্ষের হামলায় আহত ৭

ঝালকাঠি প্রতিনিধি    

৭ জানুয়ারি, ২০১৮ ১৩:১২



ঝালকাঠিতে প্রতিপক্ষের হামলায় আহত ৭

জমি নিয়ে বিরোধের জের ধরে ঝালকাঠিতে প্রতিপক্ষের হামলায় সাতজন আহত হয়েছে। আহতদের মধ্যে গুরুতর অবস্থায় একজনকে বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অন্যরা ঝালকাঠি সদর হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন।

গতকাল শনিবার বিকেলে ঝালকাঠি সদর উপজেলার বিকনা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

আহতদের সূত্রে জানা যায়, ঝালকাঠি সদর উপজেলার বিকনা গ্রামের মো. জাহাঙ্গীর হোসেন খান পৈত্রিক ও ক্রয়সূত্রে ২২ শতাংশ জমি ভোগ দখল করে আসছেন। প্রতিবেশী আবদুর রাজ্জাক মৃধা ও তার ভাই মোজাম্মেল মৃধা ২২ শতাংশ জমির মধ্যে কিছু জমি তাদের বলে দাবি করেন। এ নিয়ে উভয় পক্ষের মধ্যে বিরোধ চলছিল। শনিবার বিকেলে রাজ্জাক মৃধা ও মোজাম্মেল মৃধা লোকজন নিয়ে জমি দখল করতে যান। এতে বাধা দিলে তারা জমির মালিক জাহাঙ্গীর হোসেন খান ও তার স্বজনদের ওপর হামলা চালান। লাঠি ও লোহার রড দিয়ে পিটিয়ে এবং রামদা দিয়ে কুপিয়ে তাদেরকে আহত করা হয়।

আহতরা হলেন জাহাঙ্গীর হোসেন খান, তার স্ত্রী নাজমুন নাহার মিতু, ছেলে রাহাত খান, ভাই আলমগীর খান, হুমায়ুন কবির খান, শামীম খান ও ভাতিজা তহিদুল ইসলাম টিটু। আহতদের মধ্যে গুরুতর অবস্থায় হুমায়ুন কবির খানকে বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

হামলাকারীরা জাহাঙ্গীর হোসেন খানের বসতঘর ভাঙচুর করে। তার স্ত্রীর গলায় থাকা সোনার চেইন ও মালামাল লুটপাট করেন  বলেও অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় রাতেই ঝালকাঠি থানায় একটি অভিযোগ দেওয়া হয়েছে। এতে ১৫ জনকে আসামি করা হয়। পুলিশ অভিযোগটি তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহণের কথা জানিয়েছে।

আহত জাহাঙ্গীর হোসেন খান বলেন, 'আমাদের পৈত্রিক ও ক্রয়সূত্রে ২২ শতাংশ জমির মধ্যে অন্য কারো জমি নেই। কিন্তু প্রতিবেশী রাজ্জাক ও মোজাম্মেল আমাদের জমির মধ্যে জমি পাবেন বলে জোর করে দখলে যাওয়ার চেষ্টা করছেন। তাদের বাধা দিলে আমাদের মারধর করে সোনার গহনা ও অন্যান্য মালামাল লুটে নেয়।

মোজাম্মেল মৃধার দাবি, বেশ কয়েক দফায় তাদেরকে জমি বুঝিয়ে দেওয়ার জন্য তাগিদ দিলেও তারা শুনছেন না। জমি বুঝে নিতে গেলে, তারা উল্টো আমাদের ওপর হামলা চালান।

ঝালকাঠি থানার ওসি মো. তাজুল ইসলাম বলেন, 'অভিযোগ পেয়েছি। এসআই আসিক অভিযোগটি তদন্ত করছেন। ঘটনার সত্যতা পেলে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।'  

 



মন্তব্য