kalerkantho


আহত ১০, গ্রেপ্তার ৬

কেরানীগঞ্জে বিএনপির বিক্ষোভে পুলিশের গুলি, লাঠিপেটা

কেরানীগঞ্জ (ঢাকা) প্রতিনিধি    

৫ জানুয়ারি, ২০১৮ ২০:০০



কেরানীগঞ্জে বিএনপির বিক্ষোভে পুলিশের গুলি, লাঠিপেটা

'গণতন্ত্র হত্যা দিবস' উপলক্ষে কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে ঢাকার দক্ষিণ কেরানীগঞ্জে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করে বিএনপি। দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ বিএনপির সভাপতি অ্যাডভোকেট নিপুন রায়ের নেতৃত্বে আজ শুক্রবার বিকেলে মিছিলটি কেরানীগঞ্জ মডেল থানার মনু ব্যাপারীর ঢাল এলাকা থেকে আমিরাবাগ যাচ্ছিল। পথে পুলিশের বাধার মুখে পড়ে মিছিলটি ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়।

বিএনপির দাবি, পুলিশ তাদের মিছিলে গুলি ছুড়ে এবং লাঠিপেটা করে ছত্রভঙ্গ করে দেয়। পুলিশের গুলি ও লাঠিপেটার আঘাতে ১০ জন নেতাকর্মী আহত হয়েছে। এ সময় পুলিশ বিএনপির ছয় নেতাকর্মীকে আটক করে। আটক মো. হাসান (১৮), মো.  জনি (৩১), আক্তার হোসেন (৫৫), পলাশ (২১), মো. লোকমান (৫১) ও মো. আওলাদ হোসেন (৩৫)।

এ ব্যাপারে দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ বিএনপির সভাপতি অ্যাডভোকেট নিপুন রায়ের সঙ্গে তার মোবাইল ফোনে কথা হলে তিনি বলেন, '৫ জানুয়ারি গণতন্ত্র হত্যা দিবস' উপলক্ষে কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে আজ শুক্রবার বিকেলে আমরা বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের প্রায় পাঁচ শতাধিক নেতাকর্মী নিয়ে একটি মিছিল বের করি। মিছিলটি জিনজিরার মনু ব্যাপারীর ঢাল এলাকা থেকে আমিরাবাগ এলাকায় যাওয়ার পথে পুলিশের বাধার মুখে পড়ি।'

অ্যাডভোকেট নিপুন রায় আরো বলেন, 'পুলিশ এ সময় আমাদের নেতাকর্মীর ওপর গুলি ছোড়ে। এ ছাড়া পুলিশ আমাদের ওপর লাঠিপেটা করতে থাকে। এতে দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানা ছাত্রদলের যুগ্ম আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট মো. শাহিন, যুবদল নেতা মো. মনির, মো. আশ্রাফ ও আলমগীর হোসেনসহ ৮-১০  জন নেতাকর্মী আহত হন। আহতদের উদ্ধার করে স্থানীয় বিভিন্ন ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়েছে। পুলিশ মিছিল থেকে আমাদের বেশ কয়েকজন নেতাকর্মীকে আটক করেছে।'

কেরানীগঞ্জ মডেল থানার ওসি শাকের মোহাম্মদ যুবায়ের বলেন, 'বিএনপি মিছিলের নামে জিনজিরা-দোহার- নাবাবগঞ্জ ব্যস্ততম সড়কটি বন্ধ করে ভাঙচুর ও বিক্ষোভ মিছিল করে। আমরা খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গেলে বিক্ষোভকারীরা পুলিশের ওপর হামলা চালায়। পুলিশ জানমাল রক্ষার্থে ফাঁকা গুলি ছোড়ে। এতে কেই আহত হয় নাই। সড়কের উপর গাড়ি ভাঙচুর করার সময় আমরা ছয়জনকে আটক করেছি। এ ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে থানায় একটি মামলা প্রক্রিয়াধীন।' 



মন্তব্য