kalerkantho


পুলিশকে মারধরের অভিযোগে

সাভারে মাছ ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে মামলা, গ্রেপ্তার ১

নিজস্ব প্রতিবেদক, সাভার (ঢাকা)   

৩ জানুয়ারি, ২০১৮ ১৯:০৩



সাভারে মাছ ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে মামলা, গ্রেপ্তার ১

দায়িত্ব পালনকালে পুলিশের দুই কনস্টেবলকে মারধর ও এক উপ-পরিদর্শকের (এসআই) অস্ত্র ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে সাভার বাজার বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন মাছের বাজারের কয়েকজন মাছ ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে। এ অভিযোগে এক মাছ ব্যবসায়ীকে গ্রেপ্তার ও কয়েকজন মাছ ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে সাভার মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করেছে পুলিশ। সাভার বাজার বাসস্ট্যান্ডে গত সোমবার সন্ধ্যায় ঘটনাটি ঘটে এবং গতকাল মঙ্গলবার থানায় মামলাটি দায়ের করেন সাভার মডেল থানার এসআই নাজমুল হোসেন। 

মামলায় দুই জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত পরিচয় পাঁচজনকে আসামী করা হয়েছে। আটক মাছ ব্যবসায়ীর নাম বিপুল হোসেন (৩৫)। তিনি দিলখুশাবাগ এলাকার মাছ ব্যবসায়ী শহীদ হোসেনের ছেলে। ঘটনার পর থেকে ওই মাছ বাজারের সাধারণ মাছ ব্যবসায়ীদের মধ্যেও গ্রেপ্তার আতঙ্ক রিবাজ করছে।

মামলার অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, সাভার বাজার বাসস্ট্যান্ডে জরুরি আইনশৃঙ্খলা রক্ষা ও ফুটপাত অবৈধভাবে দখলমুক্তকরণ কাজে নিয়োজিত থাকাকালে সোমবার বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে ঢাকা-আরিচা মহাসড়ক সংলগ্ন দিলখুশাবাগ কাঁচাবাজারের ফুটপাতে মাছ ব্যবসায়ী বিএম রুদ্র ওরফে শামীম মাছের ড্রাম ও অন্যান্য মালামাল রেখে জনসাধারণের চলাচলের প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করছিলেন। 

এ সময় তাদের ড্রামসহ ওই মালামাল সরিয়ে নেওয়ার নির্দেশ দিলে মাছ ব্যবসায়ী বিপুল হোসেনসহ ৪/৫ জন যুবক এসে শামীমের পক্ষ নিয়ে পুলিশের সাথে তর্কে জড়িয়ে পড়ে। কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে কনস্টেবল সাইমুল ও আল ইমরানকে তারা মারধর করে। মারধরের সময় তারা তাঁদের পোশাকও ছিঁড়ে ফেলে। এসময় উপ পরিদর্শক (এসআই) নাজমুল হোসেন এগিয়ে গেলে তারা তাঁর কোমরে থাকা সরকারি পিস্তল ছিনিয়ে নেওয়ারও চেষ্টা চালায়। 

খবর পেয়ে থানা থেকে অতিরিক্ত পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে পুলিশ সদস্যদের উদ্ধার করে এবং ধাওয়া করে মাছ ব্যবসায়ী বিপুল হোসেনকে আটক করে। এ সময় হামলাকারী অন্যান্য মাছ ব্যবসায়ীরা পালিয়ে যায়। মাছ ব্যবসায়ীদের হামলায় আহত কনস্টেবল সাইমুল ও আল ইমরানকে সাভার এনাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে এনে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে বলে জানান সাভার মডেল থানার ওসি মহসিনুল কাদির। তিনি বলেন, সরকারি কাজে বাধা ও পুলিশের ওপর হামলাকারীদের একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ঘটনার সাথে জড়িত অন্যদের গ্রেপ্তারে অভিযান অব্যাহত আছে বলে জানিয়েছেন তিনি।


মন্তব্য