kalerkantho


সাভারে বাল্যবিয়ে রোধ

নিজস্ব প্রতিবেদক, সাভার (ঢাকা)   

২২ নভেম্বর, ২০১৭ ২৩:১৪



সাভারে বাল্যবিয়ে রোধ

প্রতীকী ছবি

কনের বাড়িতে দুপুরে চলছে খাওয়া দাওয়া, একটু পরেই কনের বাড়িতে আত্মীয়-স্বজন নিয়ে আসবে বর। স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিরাও দাওয়াত খেতে এসেছেন কনের বাড়িতে।

কনে পক্ষ প্রায় ১০০ জনের জন্য রান্না-বান্না করে খাবারের আয়োজনও করেছে। এমন সময় বাল্য বিয়ের এ খবর চলে যায় উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা খালেদা আক্তার জাহানের কাছে।  

তাৎক্ষণিক তিনি সাভার উপজেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ফখরুল আলম সমরকে সঙ্গে নিয়ে ছুটে যান কনের বাড়িতে। এই দুইজনের ঘটনাস্থলে যাওয়ার খবর পেয়ে বিয়ে বাড়িতে আগত অতিথিরা কেউ কেউ খাওয়া ফেলেই দৌঁড়ে পালিয়ে যায়। আর বর পালিয়ে যায় রাস্তা থেকেই। বাল্য বিয়ে রোধের এমনই একটি ঘটনা ঘটেছে বুধবার অপরাহ্নে সাভারে।  

সাভার উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা খালেদা আক্তার জাহান জানান, দুই পরিবারের সম্মতিতে সাভার পৌর এলাকার গেন্ডা মহল্লার মতিয়ার রহমানের মেয়ে আনিকা আক্তার মিম (১২) এর সাথে ধামরাইর আড়ালিয়া এলাকার আনোয়ার হোসেনের (২৪) বিয়ে হওয়ার কথা ছিলো বুধবার দুপুরে। এলাকায় বাল্য বিয়ে আয়োজনের খবর পেয়ে স্থানীয়রা বিষয়টি তাঁকে (সাভার উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা খালেদা জাহান) জানালে তিনি সাভার উপজেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ফখরুল আলম সমরকে নিয়ে কনের বাড়িতে গিয়ে হাজির হন।  

তিনি কনের পরিবারের সাথে আলাপ করে এ বাল্য বিয়ে বন্ধ করে দেন।

তিনি বলেন, মিমের মাকে বুঝানোর পর তিনি তাঁর ভুল বুঝতে পারেন এবং তাৎক্ষণিক কিশোরী মেয়েকে বিয়ে না দেয়ার জন্য প্রতিজ্ঞা করেন। এ সময় তাঁরা উপযুক্ত বয়সেই মেয়েকে বিয়ে দিবেন বলে আশ্বস্ত করেন। এ বাল্য বিয়ে বন্ধ করে দেওয়ায় স্থানীয়রা সন্তোষ প্রকাশ করে। মেয়ের বয়স ১৮ বছর না হওয়া পর্যন্ত বিয়ে দিবে না বলে ওই শিশুর মা রুনার কাছ থেকে মুচলেকা নিয়ে তাদেরকে ছেড়ে দেওয়া হয়। কন্যা শিশুটি সাভারের গেন্ডা মডেল স্কুলের চতুর্থ শ্রেণির শিক্ষার্থী।  

এবিষয়ে সাভার উপজেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ফখরুল আলম সমর বলেন, বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে বাল্যবিয়ে একটি সামাজিক ব্যাধি। সহস্রাব্দ উন্নয়ন লক্ষ্য অর্জনের জন্য যেখানে বিভিন্নমুখী পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে, সেখানে বাল্যবিয়ে ও এর পরিণতি সংক্রান্ত বিষয়ে নেতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি কোন সচেতন নাগরিকের কাম্য হতে পারেনা। তাই এ অবস্থা উত্তরণে সকলকে এগিয়ে আসতে হবে। মিমদের বাঁচাতে হবে।


মন্তব্য