kalerkantho


অপহরণকারী গ্রেপ্তার

মোহনগঞ্জে অপহরণের ৩৪ দিন পর স্কুলছাত্রী উদ্ধার

হাওরাঞ্চল প্রতিনিধি    

২২ নভেম্বর, ২০১৭ ২২:০৯



মোহনগঞ্জে অপহরণের ৩৪ দিন পর স্কুলছাত্রী উদ্ধার

নেত্রকোনার মোহনগঞ্জ উপজেলার শহীদ স্মৃতি উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির এক ছাত্রীকে অপহরণের ৩৪ দিন পর তাকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ সময় শৈকত হোসেন (২৩) নামের  অপহরণকারীকেও গ্রেপ্তার করা হয়।

গতকাল মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৩টার দিকে পাশের মদন উপজেলার কদমশ্রী- মনীকা গ্রামের আব্দুস সালামের বাড়ি থেকে ওই ছাত্রীকে উদ্ধার ও অপহরণকারীকে গ্রেপ্তার করে মোহনগঞ্জ থানা পুলিশ।

গ্রেপ্তার অপহরণকারী শৈকত হোসেন পাশের মদন উপজেলার কুইলাটি গ্রামের মতিউর রহমানের ছেলে।

পুলিশ জানায়, গত ১৮ অক্টোবর রাতে শৈকত  হোসেন ও তার বন্ধু শাখাওয়াত হোসেন ওই স্কুল ছাত্রীটিকে মোবাইল ফোনে বাড়ির সামনে ডেকে এনে ধারালো আস্ত্রের ভয় দেখিয়ে গামছা দিয়ে মুখ বেঁধে অপহরণ করে তাকে। পরে মেয়েটির পরিবারের লোকজন তাকে অনেক খোঁজাখুঁজির পর না পেয়ে চলতি মাসের ৮ নভেম্বর ওই স্কুলছাত্রীর বাবা বাদী হয়ে পাশের মদন উপজেলার কুইলাটি গ্রামের মতিউর রহমানের ছেলে শৈকত হোসেন ও মোহনগঞ্জ উপজেলার হাটনাইয়া গ্রামের কাঞ্চন মিয়ার ছেলে শাখাওয়াত হোসেনকে আসামি করে নেত্রকোনার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনালে একটি মামলা দায়ের করেন। পরে আদালত মামলাটি তদন্তপূর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য মোহনগঞ্জ থানাকে নির্দেশ দেন।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মোহনগঞ্জ থানার এসআই মশিউর রহমান জানান, পাশের মদন উপজেলার কুইলাটি গ্রামের মতিউর রহমানের বখাটে ছেলে শৈকত হোসেন প্রায়ই মোহনগঞ্জ উপজেলার হাটনায়া গ্রামে তার এক আত্মীয়ের বাড়িতে আসা-যাওয়া করত। এই সুবাদে শৈকতের কুনজর পড়ে শহীদ স্মৃতি উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণিতে পড়ুয়া ওই ছাত্রীর ওপর। একপর্যায়ে শৈকত মেয়েটিকে প্রেমের প্রস্তাব দিলে মেয়েটি তার এ প্রস্তাবে রাজি হয়নি। এতে সে মেয়েটির ওপর ক্ষিপ্ত হয়ে তার বন্ধু শাখাওয়াতকে সঙ্গে নিয়ে গত ১৮ অক্টোবর রাতে মেয়েটিকে অপহরণ করে।

পরে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৩টার দিকে মদন থানা-পুলিশের সহযোগিতায় মদন উপজেলার কদমশ্রী-মনীকা গ্রামের আব্দুস সালামের বাড়িতে অভিযান চালিয়ে স্কুলছাত্রীকে উদ্ধার এবং অপহরণকারীকে গ্রেপ্তার করা হয়।

এসআই মশিউর আরো জানান, আজ দুপুরে শৈকতকে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে এবং মেয়েটিকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।   

   


মন্তব্য