kalerkantho


ফরিদপুরে আওয়মী লীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষে আহত ১০

নিজস্ব প্রতিবেদক, ফরিদপুর   

১৭ অক্টোবর, ২০১৭ ২১:১৪



ফরিদপুরে আওয়মী লীগের দুই পক্ষের  সংঘর্ষে আহত ১০

ফরিদপুরের নগরকান্দা উপজেলায় “মাতুব্বরী বিক্রি করা নিয়ে” আওয়ামী লীগের দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষে ১০ জন আহত হয়েছে। আজ মঙ্গলবার সকালে নগরকান্দা উপজেলার পুরাপাড়া ইউনিয়নের মেহেরদিয়া গ্রামে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

এতে উভয় পক্ষের আহতদের নগরকান্দা ও মুকসুদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। খবর পেয়ে নগরকান্দা থানার ওসি এএফএম নাসিমের নেতৃত্বে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি   নিয়ন্ত্রণে আনে। আজ বিকেল পর্যন্ত কোনো পক্ষই থানায় অভিযোগ করেনি।  

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, উপজেলা আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতি ও পুরাপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুস সোবহান মিয়ার সঙ্গে এলাকার মাতুব্বরী বিক্রি নিয়ে একই ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ নেতা মান্নান ফকিরের বিরোধ চলছিল। এর জের ধরে আজ মঙ্গলবার সকালে উভয় পক্ষের শতাধিক সমর্থক মেহেরদিয়া গ্রামের কাজীর মোড় এলাকায় সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এতে উভয় পক্ষের  ১০ জন আহত হয়।  

আওয়ামী লীগ নেতা মান্নান ফকিরের সমর্থক মেহেরদিয়া গ্রামের বাসিন্দা ও সাব্কে ইউপি সদস্য মোশারেফ মোল্লা জানান, আজ সকালে আমি পেঁয়াজ ও পাট কেনার জন্য তিন লাখ টাকা নিয়ে পুরাপাড়া হাটে যাচ্ছিলাম। মেহেরদিয়া কাজীর মোড় এলাকায় পৌঁছলে ওই গ্রামের ময়নউদ্দিন মাতুব্বরের ছেলে কিবরিয়া মাতুব্বর ও তার দুই সহযোগী জাহাঙ্গীর মাতুব্বর এবং জিয়ার মাতুব্বর ধারালো অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে আমার কাছ থেকে টাকা ছিনিয়ে নেয়। এ সময় আমি চিৎকার দিলে ওই এলাকার চুন্নু মেম্বারসহ কয়েকজন লোক ছুটে এলে তারা ধারালো অস্ত্র দিয়ে হামলা করে।

এতে কাঞ্চু মোল্যা ও শাহাদত মোল্লা আহত হয়। এ খবর পেয়ে উভয় পক্ষের সমর্থকরা দেশীয় অস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। সংঘর্ষে উভয় পক্ষের ১০ জন আহত হয়। আহতদের নগরকান্দা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও মুকসেদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

এ ব্যাপারে মান্নান ফকির জানান, সোবহান মিয়ার লোকজন আমার সমর্থকদের টাকা কেড়ে নিলে সংঘর্ষ শুরু হয়।

অপরদিকে পুড়াপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ নেতা আবদুস সোবহান মিয়া বলেন, গ্রামের মাতুব্বরী বিক্রি নিয়ে ও আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে বিরোধের জেরে আমার সমর্থকদের ওপর মান্নান ফকিরের সমর্থকরা হামলা করলে তা প্রতিরোধ করতে গেলে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

এ ব্যাপারে নগরকান্দা থানার ওসি এ এফ এম নাসিম জানান, খবর পেয়ে পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। কোনো পক্ষই থানায় অভিযোগ দেয়নি। বর্তমানে এলাকা শান্ত রয়েছে। পুলিশ সতর্ক রয়েছে।


মন্তব্য