kalerkantho


কুয়েতে এসি বিস্ফোরণে কমলগঞ্জের একই পরিবারের পাঁচজনের মৃত্যু

নিজস্ব প্রতিবেদক, মৌলভীবাজার    

১৭ অক্টোবর, ২০১৭ ০৯:৫৭



কুয়েতে এসি বিস্ফোরণে কমলগঞ্জের একই পরিবারের পাঁচজনের মৃত্যু

কুয়েতে একটি আবাসিক ভবনের এসি বিস্ফোরণে মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার একই পরিবারের পাঁচজনের মৃত্যু হয়েছে। বাংলাদেশ সময় সোমবার বিকেল ৫টায় কুয়েত সিটির সালমিয়াত এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

মৃতদের বাড়ি মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার কমলগঞ্জ সদর ইউনিয়নের কান্দিগাঁও গ্রামে। এরা হলেন ওই গ্রামের জুনেদ মিয়ার স্ত্রী, তার দুই ছেলে ও দুই মেয়ে। দুর্ঘটনার সময় গৃহকর্তা জুনেদ মিয়া বাসার বাইরে থাকায় প্রাণে বেঁচে যান। ।

কমলগঞ্জের কান্দিগাঁও গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা জয়নাল আবেদীন জানান, জুনেদ মিয়ার স্ত্রী রোকেয়া বেগম ও চার সন্তান নিয়ে গত ১৫ বছর ধরে কুয়েতে বসবাস করছেন। সোমবার বিকেলে জুনেদ মিয়া বাসার বাইরে থাকাকালে আকস্মিকভাবে বাসার এসির কম্প্রেসার বিস্ফোরণ ঘটে। বিস্ফোরণের পর ধোঁয়ায় শ্বাসরুদ্ধ হয়ে জুনেদ মিয়ার স্ত্রী রোকেয়া বেগম, ছেলে ফাহাদ ও ইমাদ মেয়ে জামিলা ও নামিলা মারা যান।

খবর পেয়ে জুনেদ মিয়া বাসায় ফিরে একসঙ্গে স্ত্রী সন্তানদের মৃতদেহ দেখে জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। তাকে দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়।

রোকেয়া বেগম ও চার সন্তানের মৃতদেহ কুয়েতের মোবারক আল কবির হাসপাতালে রাখা হয়েছে।

নিহতের গ্রামের বাড়ি কমলগঞ্জের কান্দিগাঁও গ্রামে বৃদ্ধা মা ছাড়া আর কেউ নেই। তবে এ দুর্ঘটনার খবর সোমবার রাতে শুনে কমলগঞ্জে শোকের ছায়া নেমে আসে।

জয়নাল আবেদীন আরো জানান, জুনেদ মিয়ার অপর দুই ভাইয়ের মধ্যে এক ভাই জুবের মিয়া সপরিবারে যুক্তরাষ্ট্র ও অন্য ভাই সপরিবারে যুক্তরাজ্যের লন্ডনে বসবাস করছেন।

কমলগঞ্জ সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল হান্নান এ দুর্ঘটনায় একই পরিবারের পাঁচজনের মৃত্যুর সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, গ্রামের বাড়িতে জুনেদে বৃদ্ধা মা ছাড়াও আত্মীয়-স্বজন রয়েছেন। এখন তার মা ছাড়াও স্বজনদের মাঝে শোকের মাতম চলছে।

কুয়েতের সালমিয়ায় অগ্নিদগ্ধে মৃত্যুবরণকারীদের দেখতে মোবারক আল কবির হাসপাতালে কুয়েতে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত এস এম আবুল কালাম দূতাবাস কর্মকর্তারা নিয়ে যান বলে কুয়েত থেকে সংবাদকর্মী আব্দুল আহাদ জানান।

কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মাহমুদুল হক আজ মঙ্গলবার সকালে কান্দিগাঁও গ্রামে জুনেদ মিয়া বাড়িতে গিয়ে তার বৃদ্ধা মাকে সান্ত্বনা দেন।  

 


মন্তব্য