kalerkantho


স্থগিত ইউপি নির্বাচন

বেগমগঞ্জে বিএনপি প্রার্থী ও এজেন্টদেরকে নাজেহালের অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক, নোয়াখালী   

২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ১৯:২৭



বেগমগঞ্জে বিএনপি প্রার্থী ও এজেন্টদেরকে নাজেহালের অভিযোগ

রবিবার নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলার জীরতলী ইউনিয়নের ৩টি কেন্দ্রে পুনঃ ভোট গ্রহণকালে তাকেসহ তার সমর্থিত এজেন্টদের মারধর করে ভোটকেন্দ্র থেকে বের করে দেওয়ার অভিযোগ করেছে ওই ইউনিয়নের বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী এএসএম সেলিম। তিনি আজ রবিবার বিকালে বেগমগঞ্জের একটি কমিউনিটি সেন্টারে এক সংবাদ সম্মেলনে ভোট গ্রহণে ব্যাপক কারচুপির অভিযোগ এনে ওই তিনটি কেন্দ্রের পুনঃ ভোট গ্রহণের দাবি জানান।

বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী এএসএম সেলিম জানান, রবিবার ছিল জিরতলী ইউনিয়নের স্থগিত ৭, ৮ ও ৯ ওয়ার্ডের ৩টি কেন্দ্রের নির্বাচন। সকালে তিনি বাড়ি থেকে বের হয়ে তার এজেন্টদের পোলিং কার্ড প্রদান করার জন্য জিরতলী সরকারি প্রাইমারি স্কুলে যাওয়ার পথে তার প্রতিদ্বন্দ্বী নৌকার প্রার্থী সেলিম তার সশস্ত্র লোকজনদের নিয়ে তাকে ঘিরে ধরে নাজেহাল করে। এক পর্যায়ে তার প্রধান এজেন্ট নুর হোসেনকে মারধর করে আমার কাছে থাকা এজেন্ট ফরম নিয়ে যায় এবং আমাকে আটকে রাখে।

একইভাবে আমার সহোদর সাহাদাত হোসেন ও সাখাওয়াত হোসেনকে ৮ ও ৯নং কেন্দ্র থেকে মরধর বের করে দেয়। বিষয়টি তিনি নির্বাচন কর্মকর্তা ও পুলিশকে অবহিত করলেও কেউ তাকে সাহায্য করেনি। তারা কেন্দ্রে ঢুকে সীল মেরে জাল ভোট দেয়। বিষয়টি তিনি সংশ্লিষ্ট প্রিসাইডিং অফিসারকে অবহিত করলেও তারাও কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। তাই ওই তিনটি কেন্দ্রের পুনঃ ভোট গ্রহণের দাবি জানান। এ বিষয় তিনি জেলা নির্বাচন কর্মকর্তাকে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী রফিকুল ইসলাম মিলন জানান নির্বাচনে তার পরাজয় নিশ্চিত জেনে তিনি এ ধরনের নাটক করছেন। ভোট গ্রহণ সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন হযেছে. কোথাও কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি।


মন্তব্য