kalerkantho


ভোলা সাবরেজিস্ট্রি অফিস অবশেষে স্থানান্তর

ভোলা প্রতিনিধি    

১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ১১:৫৪



ভোলা সাবরেজিস্ট্রি অফিস অবশেষে স্থানান্তর

বহু বিতর্কিত ভোলা সদর উপজেলা সাবরেজিস্ট্রি অফিস অবশেষে স্থানান্তর করা হয়েছে। ভোলা সদর আসনের এমপি বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদের নির্দেশে ভোলা শহর থেকে বহু দূরত্বে অবস্থিত ভোলা সদর উপজেলা সাবরেজিস্ট্রি অফিসটি জেলা সাবরেজিস্ট্রি ভবন থেকে স্থানান্তর করে গতকাল বুধবার উপজেলা পরিষদ কার্যালয়ের দোতলায় আনা হয়।

গতকাল বুধবার সকাল থেকে ওই ভবনে ভোলা সদর উপজেলার দলিল রেজিস্ট্রি কার্যক্রম শুরু হয়েছে। এখন থেকে সেখানেই দলিল রেজিস্ট্রিসহ সব কার্যক্রম সম্পন্ন করা হবে। জেলা সাবরেজিস্ট্রি অফিসে চাঁদাবাজি, দালালদের দৌরাত্ম ও দলিল দাতা-গ্রহীতাদের হয়রানি বন্ধে বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদের নির্দেশে এ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র থেকে জানা যায়, ভোলা শহর থেকে প্রায় ৪-৫ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত ভোলা জেলা সাবরেজিস্ট্রি ভবনে দীর্ঘদিন ধরে সদর উপজেলা সাবরেজিস্ট্রি অফিসের কার্যক্রম চলছিল। অভিযোগ ওঠে শহর থেকে দূরে অবস্থানের কারণে সাবরেজিস্ট্রি অফিসে ব্যাপক চাঁদাবাজি ও দালালদের দৌরাত্ম্য বেড়ে যায়। এতে করে দলিল দাতা ও গ্রহীতারা হয়রানির শিকার হন। ফলে বিতর্কিত হয়ে ওঠে ভোলা সাবরেজিস্ট্রি অফিসটি।

ভুক্তভোগীরা ভোলা সদর আসনের এমপি বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদের কাছে এসব অভিযোগ দিলে মন্ত্রী সম্প্রতি জেলা আইন-শৃঙ্খলা কমিটির সভায় জেলা প্রশাসককে এ বিষয়ে তদন্তপূর্বক দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দেন। বাণিজ্যমন্ত্রীর নির্দেশে জেলা প্রশাসক মোহাং সেলিম উদ্দিন অভিযোগ তদন্ত করে ভোলা সাবরেজিস্ট্রি অফিসটি স্থানান্তর করে উপজেলা পরিষদ কমপ্লেক্সে আনার জন্য সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে সুপারিশ করেন।

এদিকে এ বিষয়ে গত ২৩ জুলাই বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ এমপিও সংশ্লিষ্ট মন্ত্রনালয়ে একটি ডিও পত্র দেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের আইন ও বিচার বিভাগের বিচার শাখা ৬ এর জ্যেষ্ঠ সহকারী সচিব মো. আনোয়ারুল হক গত ২৩ আগস্ট ভোলা জেলার সদর উপজেলাধীন সাবরেজিস্ট্রি অফিসটি বর্তমান স্থান থেকে জেলা প্রশাসক অফিস কমপ্লেক্স অথবা উপজেলা কমপ্লেক্সে স্থানান্তরের নির্দেশ দেন। মন্ত্রণালয়ের ওই নির্দেশ পেয়ে গতকাল বুধবার সকালে সাবরেজিস্ট্রি অফিসটি উপজেলা কমপ্লেক্সে স্থানান্তর করা হয়। এতে চাঁদাবাজি বন্ধ হবে এবং দালালদের দৌরাত্ম্য অনেকটা কমবে বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা। এ ছাড়া দলিল দাতা ও গ্রহীতাদেরও ভোগান্তি কিছুটা কমবে।

এ বিষয়ে ভোলা সদর উপজেলা সাবরেজিস্ট্রার মো. সেলিম উদ্দিন মল্লিক বলেন, "ভোলা সাবরেজিস্ট্রি অফিসটি এতদিন শহর থেকে দূরে থাকায় ব্যাংকিং কার্যক্রমসহ বিভিন্ন কার্যক্রম করতে অসুবিধা হচ্ছিল। অফিসে বিভিন্ন অপরাধও সংঘটিত হত। তাই বাণিজ্যমন্ত্রীর ডিও পত্র, জেলা প্রশাসকের সুপারিশ ও আইন মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে ভোলা সাবরেজিস্ট্রি  অফিসটি আগের স্থান থেকে সরিয়ে উপজেলা কমপ্লেক্স ভবনের দোতলায় স্থানান্তর করা হয়েছে। এতে দলিল সম্পাদন ও অফিসের বিভিন্ন কার্যক্রমে সুবিধা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

জেলা প্রশাসক মোহাং সেলিম উদ্দিন কালের কণ্ঠকে বলেন, "ব্যাংকিং কার্যক্রম ও সাধারণ মানুষের সুবিধার্থে বাণিজ্যমন্ত্রীর নির্দেশে সাবরেজিস্ট্রি অফিসটি আগের স্থান থেকে স্থানান্তর করে উপজেলা কমপ্লেক্সে আনা হয়েছে। " এতে চাঁদাবাজি ও দালালদের দৌরাত্ম্যসহ বিভিন্ন অপরাধও কমে আসবে বলে মন্তব্য করেন জেলা প্রশাসক।


মন্তব্য