kalerkantho


নীলফামারীতে কৃষকদের মাঝে আমনের চারা বিতরণ

নীলফামারী প্রতিনিধি    

২৪ আগস্ট, ২০১৭ ১৪:০০



নীলফামারীতে কৃষকদের মাঝে আমনের চারা বিতরণ

নীলফামারীতে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকের মাঝে রোপা আমন ধানের চারা বিতরণ করা হয়েছে। জেলা কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের আয়োজনে আজ বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে জেলা শহরের মশিউর রহমান ডিগ্রি কলেজ মাঠে ৬০০ কৃষকের মাঝে বিনাসাই জাতের আমন ধানের চারা বিতরণ করেন সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর।

এ সময় সংস্কৃতিমন্ত্রী বলেন, 'বন্যার ক্ষতি মোকাবিলায় সরকার যথাসাধ্য চেষ্টা করছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঢাকায় বসে না থেকে বিভিন্ন ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় যাচ্ছেন, পরিদর্শন করছেন, ত্রাণ বিতরণ করছেন, মানুষকে সহযোগিতা করছেন। ' তিনি ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের কল্যাণে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সঠিক ভূমিকা পালনের আহ্বান জানান। তিনি বলেন, 'উত্তরাঞ্চলে এবারের বন্যা ভয়াবহ আকার ধারণ করেছিল। আমার ৭০ বছর বয়সে এ ধরনের বন্যা দেখিনি। বন্যাপ্রবণ এলাকা না হওয়ায় এ অঞ্চলের মানুষের বন্যা মোকাবিলায় তেমন প্রস্তুতি ছিল না, এ কারণে ক্ষতি হয়েছে ব্যাপক। ভবিষ্যতে বন্যা মোকাবিলার প্রস্তুতি থাকতে হবে আমাদের। '

জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ খালেদ রহীমের সভপতিত্বে চারা বিতরণ অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব ইব্রাহিম হোসেন খান, কৃষি মন্ত্রণালয়ের বীজ উইংয়ের মহাপরিচালক অতিরিক্ত সচিব মো. আশ্রাফ উদ্দীন আহমেদ, পুলিশ সুপার মো. জাকির হোসেন খান, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি দেওয়ান কামাল আহমেদ, জেলা কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের উপপরিচালক গোলাম মোহাম্মদ ইদ্রিস, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবুজার রহমান প্রমুখ।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের উপপরিচালক গোলাম মোহাম্মদ ইদ্রিস বলেন, "আপদ মোকাবেলার জন্য নীলফামারী বিএডিসি খামার বিনাসাই জাতের আমন বীজতলা তৈরি করেছে।

বিএনডিসির ওই চারা ৬০০ কৃষকের মাঝে বিতরণ করা হয়। প্রাপ্ত চারা একেকজন কৃষক এক বিঘা জমিতে রোপণ করতে পারবেন। " তিনি বলেন, "বন্যায় নীলফামারীর ছয় উপজেলার ৯২ হাজার ৩৬০ জন কৃষকের আট হাজার ৩৩৯ হেক্টর জমির সম্পূর্ণ এবং ২৯ হাজার ৪৫১ হেক্টর জমির রোপা আমন ক্ষেত আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। টাকার অংকে ওই ক্ষতির পরিমাণ প্রায় ১১৯ কোটি টাকা। এ ছাড়া আমন আবাদ ও অন্যান্য ফসলসহ জেলায় কৃষিতে ক্ষতির পরিমাণ ১৬৫ কেটি টাকা।  


মন্তব্য