kalerkantho


পত্রদূত সম্পাদক আলাউদ্দীন হত্যা মামলায় সাক্ষ্য গ্রহণ

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি    

২২ আগস্ট, ২০১৭ ২০:২৯



পত্রদূত সম্পাদক আলাউদ্দীন হত্যা মামলায় সাক্ষ্য গ্রহণ

দৈনিক পত্রদূত সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা স ম আলাউদ্দীন হত্যা মামলার জব্দ তালিকার সাক্ষী জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি শেখ নুরুল হকের জবানবন্দি ও জেরা সম্পন্ন হয়েছে। আজ মঙ্গলবার জনাকীর্ণ আদালতে দায়রা জজ জোয়ার্দ্দার আমিরুল ইসলাম তার জবানবন্দি গ্রহণ করেন।
 
পরে আদালত আগামী ২৮ আগস্ট জব্দ তালিকার অপর সাক্ষী পিডব্লিউ ২১ শেখ আজমল আলীর অবশিষ্ট সাক্ষ্যগ্রহণের পরবর্তী তারিখ ধার্য করেন।
 
আজ মঙ্গলবার আদালতে চাঞ্চল্যকর এ হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত কাটারাইফেল এবং অন্যান্য অস্ত্র ও গোলাবারুদ প্রদর্শিত হয়। প্রদর্শিত অস্ত্র ও গোলাবারুদের মধ্যে ছিল কাটা রাইফেল, পাইপগান, বন্দুক, এয়ারগান, গন্ধক, মোমছাল, রাইফেলের বাট, স্প্রিংসহ বিপুল পরিমাণ অস্ত্র ও গুলি।
 
উল্লেখ্য, ১৯৯৬ সালের ১৯ জুন দৈনিক পত্রদূত অফিসে কর্মরত অবস্থায় ঘাতকের গুলিতে প্রাণ হারাণ পত্রিকার সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা স ম আলাউদ্দীন। ওই ঘটনায় নিহতের ভাই স ম নাসির উদ্দীন বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামাদের বিরুদ্ধে সাতক্ষীরা সদর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। ঘটনার পাঁচ দিন পর পুলিশ শহরের সুলতানপুর থেকে যুবলীগকর্মী কাজী সাইফুল ইসলামকে গ্রেপ্তার এবং সাইফুলের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত কাটা রাইফেল, পাইপগান, বন্দুক, এয়ারগান, গন্ধক, মোমছাল, রাইফেলের বাট, স্প্রিংসহ বিপুল পরিমাণ অস্ত্র ও গুলি উদ্ধার করে। দীর্ঘ তদন্ত শেষে সিআইডি সুলতানপুরের সাইফুল্লাহ কিসলু (বর্তমানে মৃত) তার ভাই খলিলুল্লাহ ঝড়ু, তার আর এক ভাই মোমিন উল্লাহ মোহন, আলিপুরের আব্দুস সবুর, নগরঘাটার আব্দুর রউফ, তার শ্যালক আবুল কালাম, সুলতানপুরের কাজী সাইফুল, আতিয়ার রহমান, এসকেন্দার মির্জা ও প্রাণসায়রের সফিউর রহমানকে আসামি করে চার্জশিট দাখিল করে।
 
রাষ্ট্রপক্ষে মামলাটি পরিচালনা করছেন পিপি অ্যাডভোকেট ওসমান গনি। তাকে সহায়তা করেন অ্যাডভোকেট এস এম হায়দার, অ্যাডভোকেট ফাহিমুল হক কিসলু, অ্যাডভোকেট তপন কুমার দাস। আসামি পক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট আব্দুল মজিদ, জি এম লুৎফার রহমান প্রমুখ।                                                             

মন্তব্য