kalerkantho


সৈয়দপুরে গৃহবধূর লাশ উদ্ধার

সৈয়দপুর (নীলফামারী) প্রতিনিধি    

২১ আগস্ট, ২০১৭ ১৯:২১



সৈয়দপুরে গৃহবধূর লাশ উদ্ধার

নীলফামারীর সৈয়দপুরে গলায় ওড়না পেঁচানো অবস্থায় মোছা. লাবনী (৩২) নামের এক গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। গতকাল রবিবার রাতে শহরের কয়ানিজপাড়ায় অবস্থিত বাড়ি থেকে লাশটি উদ্ধার করে পুলিশ। তার মৃত্যু রহস্যজনক বলে মনে করছে এলাকাবাসী।

পুলিশ জানায়, মোছা. লাবনী সৈয়দপুরের কয়ানিজপাড়ার জনৈক রবিউল ইসলামের স্ত্রী। তারা শহরের কয়ানিজপাড়া এলাকার ভাড়ায় থাকেন। গতকাল রবিবার সন্ধ্যায় ঘুমানোর কথা বলে বাসার শয়নকক্ষে যান লাবনী। এ সময় পাশের ঘরে বসে ষষ্ঠ ও দ্বিতীয় শ্রেণিতে পড়ুয়া তার ছেলে-মেয়ে পড়ালেখা করছিল। একপর্যায়ে মেয়ে তার মা লাবনীকে চা খাওয়ার জন্য ডাকতে থাকে। কিন্তু পাশের ঘর থেকে মায়ের কোনো সাড়াশব্দ না পেয়ে বন্ধ ঘরের দরজা খুলে জানালার গ্রিলের সঙ্গে মায়ের ঝুলন্ত লাশ দেখতে পায় সে। এ সময় তার চিৎকার শুনে পাশের ঘর থেকে তার বড় ভাই ছুটে আসে। খবর পেয়ে বাইরে থাকা গৃহবধূর স্বামী রবিউল ইসলামও বাড়িতে ছুটে আসেন।

পরে স্বামী রবিউল তার দুই শিশু সন্তানকে নিয়ে সৈয়দপুর থানায় গিয়ে ঘটনাটি জানান। এরপর সৈয়দপুর  থানার ওসি মো. আমিরুল ইসলামের উপস্থিতিতে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে লাশটি উদ্ধার করে। এ সময় লাশের গলায় ওড়না পেঁচানো ছিল। গৃহবধূর স্বামী শহরের প্লাজা মার্কেটের একটি টেলিকম দোকানের কর্মচারী।

স্থানীয়রা জানায়, গৃহবধূ লাবনী অনেক ঋণী হয়ে পড়েছিলেন। তার নামে আদালতে ১০ লাখ টাকার চেক ডিজঅনার মামলাও রয়েছে। সংসারের বিপুল পরিমাণ ঋণের কারণে ওই গৃহবধূ আত্মহত্যা করে থাকতে পারেন বলে তাদের ধারণা। তবে জানালার গ্রিলের সঙ্গে তার লাশ যে অবস্থায় উদ্ধার করা হয় তাতে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করা সম্ভব নয়। তাই তার মৃত্যু নিয়ে এলাকায় রহস্য সৃষ্টি হয়েছে।

সৈয়দপুর থানার ওসি (তদন্ত) তাজউদ্দিন জানান, এ ব্যাপারে স্থানীয় থানায় একটি ইউডি মামলা হয়েছে। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য নীলফামারী আধুনিক সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।  


মন্তব্য