kalerkantho


জামালপুরে ভয়াবহ বন্যায় দুই দিনে ১০ জনের মৃত্যু

জামালপুর প্রতিনিধি   

১৭ আগস্ট, ২০১৭ ২২:২২



জামালপুরে ভয়াবহ বন্যায় দুই দিনে ১০ জনের মৃত্যু

ছবি: কালের কণ্ঠ

জামালপুরে ভয়াবহ বন্যার কারণে গত দুই দিনে ১০ জনের মৃত্যু হয়েছে। তন্মধ্যে ইসলামপুর পৌর এলাকার আব্দুস সালাম (৪৫) বৃহস্পতিবার বিকালে বন্যার পানিতে ডুবে মারা গেছেন।

একইদিন দুপুরে ইসলামপুরের পশ্চিম বামনা গ্রামের জিলাতন বেগম (২২) নামের একজন গর্ভবতী নারী বন্যার কারণে বিনা চিকিত্সায় মারা গেছেন। এর আগের দিন বুধবার জামালপুরের মেলান্দহে বন্যার পানিতে ডুবে ৬ জন এবং বকশীগঞ্জে ২ জন পানিতে ডুবে মারা গেছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ইসলামপুর পৌর এলাকার টংগের আগলা গ্রামের মৃত খোরশেদ আলীর ছেলে আব্দুস সালাম বৃহস্পতিবার বিকালে নিজ বাড়ির পাশে বন্যার পানিতে মাছ ধরতে যায়। এক পর্যায়ে তিনি বানের পানিতে ডুবে যায়। পরে এলাকাবাসী তাকে উদ্ধার করে উপজেলা সাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে কর্তব্যরত চিকিত্সক ডা, মাছুদুর রহমান পলাশ তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

একইদিন দুপুরে ইসলামপুরের পশ্চিম বামনা গ্রামের রবিজল সেকের গর্ভবতী স্ত্রী জিলাতন বেগম (২২) জ্বর ও তলপেটের ব্যথায় গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েন। এদিকে গত চারদিন আগেই রবিজলের বাড়িঘরসহ আশপাশের ১০ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে বন্যার পানিতে সযলাব হয়ে যাওয়ায় বন্যার পানির তীব্র স্রোতের কারণে অসুস্থ্য জিলাতনকে চিকিত্সা করানো সম্ভব হয়নি। এরই এক পর্যায়ে বৃহস্পতিবার বিকালে গর্ভবতী নারী জিলাতন বেগম মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন।

ইসলামপুর উপেজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এবিএম এহছানুল মামুন জানান, বামনা গ্রামের গর্ভবতী নারী জিলাতন বেগম বন্যার কারণে বিনা চিকিত্সায় মারা গেছেন।

একই দিন টংগের আলগা গ্রামে আব্দুস সালাম পানিতে ডুবে মারা গেছেন। তারা দু’জনই বন্যার কারণে মারা যাওয়ায় উভয় পরিবারকে আর্থিক সহায়তা দেওয়া হবে।

অপরদিকে পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, জামালপুরের মেলান্দহের পৃথক স্পটে বুধবার দুপুরে বন্যার পানিতে ডুবে ৬ জন এবং বকশীগঞ্জে ২ জন নিহত হয়েছে। তন্মধ্যে মেলান্দহ পৌর এলাকার নলবাড়িয়া গ্রামের ময়না মিয়ার স্কুল পড়ুয়া ছেলে সজিব মিয়া (১৪) এবং নাগেরপাড় গ্রামের জিল্লুর রহমান (১৪) নামে দুই বন্ধু বন্যার পানি দেখতে গিয়ে বুধবার সকাল ১০টায় পানির স্রোতে তারা ভেসে যায়।

এ সময় ভালুকা গ্রামের লাল মিয়া (৪০) তাদেরকে উদ্ধার করতে গিয়ে তিনিও বন্যার পানিতে ডুবে মারা যান। এছাড়াও একই দিন সকালে মেলান্দহ মাহমুদপুর ইউনিয়নের আটবাড়ীয়া গ্রামের কৃষক আজিবন মোল্লা নামে এক ব্যক্তির পানিতে ডুবে মৃতু্য হয়েছে। এছাড়াও মেলান্দহ উপজেলার কুলিয়া গ্রামের কমল সেক (২১) নামের একজন কলেজ ছাত্র বন্যার পানিতে ডুবে মারা গেছে। সে কুলিয়া গ্রামের পাগু সেকের পুত্র। মেলান্দহ থানার ওসি মাজহারুল করিম ঘটনাগুলোর সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

অপরদিকে বকশিগঞ্জ উপজেলার ধুমালীপাড়া পশ্চিমপাড়া গ্রামের আবেদ আলীর ছেলে মোজাম্মেল হক (১৬) নামে এক প্রতিবন্ধী বন্যার পানিতে গোসল করতে গিয়ে বুধবার সকালে বন্যার পানিতে ডুবে মারা গেছে। একই উপজেলার সাধুরপাড়া ইউনিয়নের গাজীরপাড়া গ্রামের হুয়ারুল গাজীর ছেলে ইলিয়াছ গাজী (১৬) বাঁশের সাকো থেকে কাটাখালি খালে পড়ে বন্যার পানিতে ডুবে মারা গেছে। বকশিগঞ্জ থানার ওসি আসলাম হোসেন এ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।


মন্তব্য