kalerkantho


ভোলায় পরিবারের সবাইকে অচেতন করে মালামাল লুট

ভোলা প্রতিনিধি    

১৭ আগস্ট, ২০১৭ ১৪:১৬



ভোলায় পরিবারের সবাইকে অচেতন করে মালামাল লুট

খাবারের সঙ্গে নেশাজাতীয় দ্রব্য মিশিয়ে পরিবারের সদস্যসহ আটজনকে অচেতন করে ভোলার দৌলতখান উপজেলার চরপাতা ইউনিয়নের তহশিল অফিসের অফিস সহকারী আবুল বাসারের বাসার মূল্যবান মালামাল লুট করেছে অজ্ঞান পার্টির সদস্যরা। গতকাল বুধবার রাতে ভোলা সদর উপজেলার শিবপুর ইউনিয়নের ২ নম্বর ওয়ার্ডে এ ঘটনা ঘটে।

অসুস্থ গৃহকর্তা আবুল বসার (৪৫), তার স্ত্রী হালিমা (৩৫), ছেলে সুমন (২০), আক্তার (৩০), মেয়ে রুমা (৩০), শাশুড়ি জাহানারা (৬০), পরিবারের অপর এক সদস্য ঝর্ণা (১০) এবং মাদ্রাসাছাত্র তানজিলকে (১৫) আজ বৃস্পতিবার সকালে ভোলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

পরিবারের সদস্যরা গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। তারা কেউ ভালোভাবে কিছু বলতে পারছেন না। গৃহকর্তা আবুল বসার, তার ছেলে সুমন, আক্তার ও তানজিল জানান, বুধবার রাতের খাবার খেয়ে তারা সবাই অসুস্থ হয়ে পড়েন। স্থানীয়রা আজ সকালে তাদেরকে উদ্ধার করে ভোলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন।

ধারণা করা হচ্ছে অজ্ঞান পার্টির সদস্যরা রাতের খাবারের সঙ্গে চেতনানাশক ওষুধ মিশিয়ে দিয়েছে। রাতে ওই খাবার খেয়ে তারা সবাই অচেতন হয়ে পড়েন। এ সুযোগে অজ্ঞান পার্টির সদস্যরা রাতের কোনো একসময় ঘরের জানালার গ্রিল ভেঙে নগদ টাকা, স্বর্ণালংকারসহ বেশ কিছু মূল্যবান মালামাল লুট করে নিয়ে যায়।

খবরের সত্যতা নিশ্চিত করে ভোলা সদর মডেল থানার ওসি মীর খায়রুল কবির জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে।

চিকিৎসকের বরাত দিয়ে তিনি জানান, খাদ্যে বিষক্রিয়া হয়ে তারা সবাই অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। এ ব্যাপারে কেউ কোনো লিখিত অভিযোগ দেয়নি।

উল্লেখ্য, সম্প্রতি ভোলায় অজ্ঞান পার্টির উপদ্রব বেড়েছে। গত মে মাসে লালমোহন উপজেলার একই এলাকায় একইভাবে পরিবারের সাতজনকে একইভাবে অচেতন করে সর্বস্ব লুট করে নিয়ে যায় অজ্ঞান পার্টির সদস্যরা।


মন্তব্য