kalerkantho


রংপুরে মাজারের খাদেম হত্যা

১২ নব্য জেএমবি সদস্যের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন

রংপুর অফিস    

১৬ আগস্ট, ২০১৭ ২০:১০



১২ নব্য জেএমবি সদস্যের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন

রংপুরের কাউনিয়ায় মাজারের খাদেম ও আওয়ামী লীগ নেতা রহমত আলী হত্যা মামলায় নব্য জেএমবি ১২ সদস্যের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করা হয়েছে। আজ বুধবার সকালে রংপুরের বিশেষ জজ নরেশ চন্দ্র সরকার আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ পড়ে শোনান।

এ সময় জঙ্গিরা নিজেদের নির্দোষ দাবি করেন। আগামী ২৩ আগস্ট মামলার সাক্ষ্যগ্রহণের দিন ধার্য করা হয়েছে।

এর আগে কঠোর পুলিশি নিরাপত্তার মধ্যে রংপুর কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে জঙ্গিদের রংপুর আদালতে নিয়ে এসে বিশেষ নিরাপত্তার মধ্যে হাজত থানার পাশের একটি কক্ষে রাখা হয়। পরে সকাল পৌনে ১১টায় হাজতখানা থেকে আবারও বিপুল সংখ্যক পুলিশি পাহারায় রংপুরের বিশেষ জজ নরেশ চন্দ্র সরকারের আদালতে ৯ জঙ্গিকে আনা হয়। এরা হলো জঙ্গি মাসুদ রানা, এছাহাক আলী, লিটন মিয়া, আবু সাঈদ, সাখাওয়াত হোসেন, জাহাঙ্গীর হোসেন ওরফে রাজিব, সাদাত ওরফে রতন, সরোয়ার হোসেন ওরফে সাবু ও তৌফিকুল ইসলাম।

সরকার পক্ষের আইনজীবী রথিশ চন্দ্র ভৌমিক জানান, চাঞ্চল্যকর এ মামলায় ১৪ জেএমবির জঙ্গির বিরুদ্ধে চার্জশিট দাখিল করেছে পুলিশ। এদের মধ্যে জঙ্গি বাইক হাসান ও সাদ্দাম হোসেন পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছেন। বাকি ১২ জনের মধ্যে ৯ জঙ্গি গ্রেপ্তার হওয়ার পর তারা কারাগারে আছেন। তিন জঙ্গি এখনও পলাতক।

এরা হলেন চান্দু মিয়া, রাজিবুল ইসলাম ওরফে বাদল ও বাবুল আখতার।

আইনজীবী রথিশ চন্দ্র ভৌমিক আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করার আবেদন জানালে বিচারক তাদের বিরুদ্ধে দণ্ডবিধি আইনের ৩০২/৩৪/১০৯ ধারায় মামলার অভিযোগ পড়ে শোনান। এ সময় আসামিরা সবাই নিজেদের নির্দোষ দাবি করে ন্যায়বিচার আশা করেন বলে আদালতকে জানান। পরে বিচারক আগামী ২৩ আগস্ট মামলার বাদীর সাক্ষ্যগ্রহণের দিন ধার্য করেন।

উল্লেখ্য, ২০১৫ সালের ১০ নভেম্বর রংপুরের কাউনিয়া উপজেলার টেপামধূপুর এলাকায় রাত ৯টার দিকে বাসায় ফেরার পথে স্থানীয় মাজারের খাদেম ও আওয়ামী লীগ নেতা রহমত আলীকে গলা কেটে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। এ ঘটনায় নিহত রহমত আলীর ছেলে শফিকুল ইসলাম বাদী হয়ে কাউনিয়া থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

    


মন্তব্য