kalerkantho


শরীয়তপুরে ছাত্রলীগের ছয় নেতাকর্মী বহিষ্কার

শরীয়তপুর প্রতিনিধি    

১৬ আগস্ট, ২০১৭ ১৬:৩১



শরীয়তপুরে ছাত্রলীগের ছয় নেতাকর্মী বহিষ্কার

দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে শরীয়তপুরে ছাত্রলীগের ছয় নেতাকে বহিষ্কার করেছে কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদ।

বহিষ্কৃতরা হলেন শরীয়তপুর সদর উপজেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সগির হাওলাদার, শরীয়তপুর সরকারি কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সদস্য রাজিব দেওয়ান, শরীয়তপুর সদর উপজেলা ছাত্রলীগের সদস্য জাহিদ হাসান বাপ্পি, শরীয়তপুর সরকারি কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সদস্য অনিক মাদবর এবং শরীয়তপুর সদর উপজেলা শাখা ছাত্রলীগের কর্মী রাসেল সরদার।

এ ছাড়া শরীয়তপুর জেলা শাখা ছাত্রলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক ইকবাল হোসেন টিপু কোতোয়ালকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে। তাকে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে কারণ দর্শাতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এদিকে, শরীয়তপুর জেলা শাখা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক মহসিন মাদবরকে কেন বহিষ্কার করা হবে না ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে তার কারণ দর্শাতে বলা হয়েছে। বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

উল্লেখ, শরীয়তপুর সরকারি কলেজে জাতীয় শোক দিবসের আলোচনা সভায় ছাত্রলীগের দুই পক্ষে সংঘর্ষ হয়। গতকাল মঙ্গলবার দুপুর ৩টার দিকে জেলা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক মহসিন মাদবর ও যুগ্ম আহ্বায়ক ইকবাল হোসেন টিপুর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়।

ইকবাল হোসেনের সমর্থকরা কলেজের অনার্স দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী সোহান হাওলাদারকে কুপিয়ে আহত করে। আহত ওই ছাত্রকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় পাঠানো হয়েছে। তিনি মহসিন মাদবরের সমর্থক।

ওই ঘটনায় জড়িত অভিযোগে ইকবাল হোসেন টিপু, আলী আজম মাদবর, জাহিদ হাসান বাপ্পি, রাজিব দেওয়ান, রাশেল সরদার ও সগির হাওলাদারকে আটক করেছে পুলিশ।

শরীয়তপুর সদরের পালং মডেল থানার ওসি মনিরুজ্জামান বলেন, "জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে শরীয়তপুর সরকারি কলেজের অডিটরিয়ামে আলোচনা অনুষ্ঠান ছিল। ওই অনুষ্ঠানে বসা নিয়ে ছাত্রলীগের দুই পক্ষে বাকবিতণ্ডা হয়। অনুষ্ঠান শেষে ক্যাম্পাসের বা‌ইরে দুই পক্ষ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। সংঘর্ষে জড়িত অভিযোগে ছয়জনকে আটক করা হয়েছে। আহত শিক্ষার্থীর বাবা হারুন হাওলাদার একটি মামলা দায়ের করেছেন। " 


মন্তব্য