kalerkantho


নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহারের অভিযোগ

দাউদকান্দিতে মাঝপথে রাস্তা নির্মাণ বন্ধ, জনদুর্ভোগ চরমে

দাউদকান্দি (কুমিল্লা) প্রতিনিধি    

১৮ মার্চ, ২০১৭ ১৭:৪৫



দাউদকান্দিতে মাঝপথে রাস্তা নির্মাণ বন্ধ, জনদুর্ভোগ চরমে

কুমিল্লার দাউদকান্দিতে ঠিকাদারের গাফলতির কারণে গৌরীপুর- লালপুর সড়কের মাঝপথে রাস্তা পাকাকরণ বন্ধ রয়েছে। এতে উপজেলার ছয় গ্রামের শিক্ষার্থীসহ কয়েক হাজার মানুষের চলাচলে চরম দুর্ভোগ সৃষ্টি হয়েছে।

এদিকে, আজ শনিবার চরমাহমুদ্দি গ্রামবাসী রাস্তার কাজ সম্পন্ন করার দাবি জানিয়ে সংবাদ সম্মেলন করছেন।

সরেজমিনে জানা যায়, দাউদকান্দি উপজেলা গৗরীপুর-লালপুর সড়কের কয়েকটি হাইস্কুল ও মাদ্রাসার কয়েক শ শিক্ষার্থী স্কুলে আসা-যাওয়া করে। ঠিকাদারের গাফলতি আর নিম্নমানের নির্মাণ সামগ্রীর কারণে এ রাস্তা দিয়ে চলাচলে অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। গৗরীপুর-লালপুর সড়কের গৌরীপুর বাজার থেকে চরমাহামুদ্দী গ্রামের পূর্ব মাথা পর্যন্ত স্থানীয় সরকার প্রকৌশলী অধিদপ্তর পাকা করার জন্য ৬৫ লাখ টাকায় দরপত্র আহ্বান করলে ঈশান এন্টারপ্রাইজ নামের একটি টিকাদারি প্রতিষ্ঠান কাজ পায়।

কার্যাদেশ পাওয়ার দীর্ঘদিন পর রাস্তাটি পাকা করার উদ্দেশ্যে প্রতিষ্ঠানটি রাস্তার মাটি কেটে আংশিক বালি ভরাট করার পর কাজ বন্ধ করে দেওয়া হয়। ঠিকাদার রাস্তা কাটার পূর্বে বৃষ্টি না থাকলে মাটির এই রাস্তাটি দিয়ে সিএনজিচলিত অটোরিকশাসহ অন্যান্য যানবাহন চলাচল করত। রাস্তাটি কাটার পর এখন সিএনজি আটারিকশা চলাচল দূরের কথা পায়ে হেঁটেও মানুষজন চলতে পারে না। বৃষ্টি বাদলের দিন এসে যাওয়ায় জনগণের চলাচলে চরম দুর্ভোগ সৃষ্টি হয়েছে। এদিকে, রাস্তাটি পাকা করার জন্য খুবই নিম্নমানের যে ইটের খোয়া এনে রাস্তার পাশে স্তুপ করে রাখা হয়েছে তা আঙ্গুঁলে টিপ দিলেই গুড়িমাটি হয়ে যায়।

এ গ্রামের ফজলু মিয়া মেম্বার বলেন, "বর্তমান অবস্থার চেয়ে কাচা রাস্তাও অনেক ভালো ছিল। " উন্নতমানের ইট দিয়ে অবিলম্বে কাজ শুরু না করলে গ্রামবাসী ফুঁসে উঠবে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

উল্লেখ্য, নিম্নমানের উপকরণ ও নিয়ম বহির্ভূত কাজ করায় দাউদকান্দি উপজেলা প্রকৌশলী রুবাইয়াত জামান আরো কয়েকটি রাস্তার কাজ বন্ধ করে দিয়েছেন। ঈশান এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধিকারী ঠিকাদার গিয়াস উদ্দিন আহমেদ বলেন, "নির্বাহী প্রকৌশলী স্বপন কান্তি পাল দাউদকান্দি উপজেলা প্রকৌশলী রুবাইয়াত জামান যে  মানের কাজ চান সেই মানের কাজ করার জন্য আমরা চেষ্টা করছি। কোনও কোনও  ঠিকাদার বলেন ওই দুই প্রকৌশলীর চাহিদা অনুযায়ী কাজ করলে আমাদের ব্যবসা লাটে উঠবে। "

এ ব্যাপারে দাউদকান্দি উপজেলা প্রকৌশলী রুবাইয়াত জামানের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, "ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানটিকে নিম্নমানের খোয়া সরিয়ে নেওয়ার জন্য লিখিত নির্দেশ দেওয়া হয়েছে এবং অবিলম্বে ভালো ইট দিয়ে কাজ করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। অন্যথায় কার্যাদেশ বাতিল করে অন্য প্রতিষ্ঠানকে কাজ দেওয়া হবে। এ এলাকার ঠিকাদাররা নিম্নমানের কাজ করায় অভ্যস্ত হয়ে যাওযায় এখন সঠিক মানের কাজ করাতে আমাদের বেগ পেতে হচ্ছে। "
 


মন্তব্য