kalerkantho


কক্সবাজার পৌরসভায় অবৈধ উচ্ছেদ অভিযান শুরু

নিজস্ব প্রতিবেদক, কক্সবাজার   

১৬ মার্চ, ২০১৭ ২৩:১৯



কক্সবাজার পৌরসভায় অবৈধ উচ্ছেদ অভিযান শুরু

কক্সবাজার পৌরসভার জবর দখল করা নালা-নর্দমা উচ্ছেদ অভিযান শুরু হয়েছে আজ বৃহস্পতিবার থেকে। পৌরসভার ভারপ্রাপ্ত মেয়র মাহবুবুর রহমান চৌধুরীর নেতৃত্বে ক্ষুব্ধ পৌরবাসী উচ্ছেদ করলেন অবৈধভাবে নালা দখলকারিদের বেশ কিছু অবৈধ স্থাপনা। পুলিশ-ম্যাজিস্ট্রেট ছাড়াই কক্সবাজার পৌরসভায় প্রথম বারের মতো অবৈধ নালা দখলকারীদের বিরুদ্ধে এ অভিযান শুরু হয়েছে।

কক্সবাজার পৌরসভা কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, শহরের গুটি কয়েক নালা দখলকারীদের কারণে তিন লক্ষাধিক পৌরবাসী জিম্মি হয়ে পড়েছে। বর্ষা শুরু হবার সাথে সাথেই জলাবদ্ধতায় হাবুডবু খেতে হয় পৌরবাসীকে। এতে করে ভয়াবহ দুর্ভোগের পাশাপাশি ব্যবসায়ীরা হয় অবর্ণনীয় ক্ষতির শিকার। পৌরসভা কর্তৃপক্ষ জেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় শহরের এসব অবৈধ দখলদারদের তালিকাও তৈরি করে। পৌর শহরের তালিকাভুক্ত ১২৯ জন অবৈধ দখলদারদের এক বছর আগে তাদের নিজ দায়িত্বে নালা থেকে স্থাপনা সরিয়ে নিতে বলা হয়েছিল। কিন্তু এতদিনেও এসব দখলদাররা তাদের অবৈধ স্থাপনা সরিয়ে নেননি।

অবৈধভাবে শহরের নালা-নর্দমা দখল করার কারণে গত সপ্তাহের অকাল বর্ষণেও মারাত্মক জলাবদ্ধতার কবলে পড়েন পৌরবাসী। এ প্রসঙ্গে পৌর সভার ভারপ্রাপ্ত মেয়র বলেন-‘গেল সপ্তাহের অকাল বর্ষণের জলাবদ্ধতায় পৌরবাসীর অবর্ণনীয় দুর্ভোগ পৌর পরিষদ অত্যন্ত বেদনার সাথে লক্ষ্য করেছে।

কক্সবাজার পৌরবাসী তাদের দুঃখ-বেদনা থেকে পরিত্রাণ লাভের উদ্দেশেই নির্বাচিত করেছেন পরিষদের সদস্যদের। ’ তিনি জানান, জবর দখলকারীরা পৌরসভার নালা-নর্দমা দখল করে রেখেছেন দীর্ঘদিন ধরে। একমাত্র এ কারণেই পৌরবাসী বর্ষণের ময়লা-আবর্জনা আর কাদা-পানিতে ডুবছে। তাই এবার জবর দখল উচ্ছেদ করা ছাড়া কোন গত্যন্তর নেই।

পৌরসভার ভারপ্রাপ্ত মেয়র মাহবুবুর রহমান চৌধুরী জানান, পৌরবাসীদের সঙ্গে নিয়ে আজ থেকে নালা-নর্দমা দখলকারিদের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ কার্যক্রম শুরু করা হয়েছে। এতে জলাবদ্ধতায় ভুক্তভোগী ক্ষুব্ধ পৌরবাসীও এগিয়ে আসেন। আজ প্রথম দিনে কক্সবাজারের সিভিল সোসাইটির সভাপতি আবু মোরশেদ চৌধুরীর মালিকানাধীন আবু সেন্টার নামের মার্কেটের অবৈধ স্থাপনাসহ ৭টি প্রতিষ্ঠানের অবৈধ দখলদারদের উচ্ছেদ করা হয় এবং আরও ৭টি অবৈধ স্থাপনা নিজেরা সরিয়ে নেয়ার শর্তে সময়সীমা বেধে দেয়া হয়। পৌরসভার ভারপ্রাপ্ত মেয়র আরও জানান, অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান অব্যাহত থাকবে। এ জন্য পৌরবাসীর সহযোগিতা কামনা করেছেন তিনি।


মন্তব্য