kalerkantho


সীতাকুণ্ডে জঙ্গি আস্তানায় নারীসহ চার জঙ্গি নিহত

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৬ মার্চ, ২০১৭ ১০:১৮



সীতাকুণ্ডে জঙ্গি আস্তানায় নারীসহ চার জঙ্গি নিহত

অপারেশন অ্যাসল্ট ১৬ তে এ পর্যন্ত চার জঙ্গি নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। এদের মধ্যে একজন নারী ও তিনজন পুরুষ জঙ্গি। নিহতদের মধ্যে তিনজন আত্মঘাতী বিস্ফোরণে এবং অপরজন বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছেন। সাংবাদিকদের নিশ্চিত করেছেন ঘটনাস্থলে উপস্থিত থাকা পুলিশের কাউন্টার টেররিজম ইউনিট ঢাকার অতিরিক্ত উপকমিশনার (এডিসি) আব্দুল মান্নান। তিনি আরও জানান, জঙ্গিদের হাতে জিম্মি থাকা ৯ জনকে উদ্ধার করেছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। অভিযানে পুলিশের সোয়াত টিমের দুই সদস্য আহত হয়েছেন। তাদের চট্টগ্রামে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। রাতভর ঘিরে রাখার পর বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৬টার দিকে সীতাকুণ্ড শহরের প্রেমতলা ওয়ার্ডের চৌধুরীপাড়ার ছায়ানীড় নামের একটি দোতলা বাড়িতে অভিযান চালায় পুলিশ।

পুলিশের কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের অতিরিক্ত উপকমিশনার ছানোয়ার হোসেন বলেন, ভোরে পুলিশ সদস্যরা ছাদ হয়ে বাড়ির ভেতরে প্রবেশ করতে যায়। এ সময় এক নারীসহ দুই বা তিনজন চিলেকোঠার সামনে এসে দাঁড়িয়ে আত্মঘাতী বিস্ফোরণ ঘটায়। তাদের নাড়িভুঁড়ি ও শরীরের কিছু অংশ ছড়িয়ে-ছিটিয়ে গেছে।

বিস্ফোরণে চিলেকোঠা উড়ে গেছে জানিয়ে ছানোয়ার বলেন, এই অবস্থায় তারা পিছু হটে কিছুটা দূরে সরে এসেছেন। নতুন স্ট্র্যাটেজিতে আবার বাড়িতে প্রবেশের চেষ্টা চলছে। এই বিস্ফোরণের পর আহত দুই পুলিশ সদস্যকেও অ্যাম্বুলেন্সে করে নিয়ে যেতে দেখা গেছে।

সকাল সাড়ে ৬টা থেকে বাড়িটিতে অভিযান শুরু করে পুলিশ। এ সময় সাত থেকে আট মিনিট ধরে গুলির পাশাপাশি সাত-আটটি বিস্ফোরণের শব্দ শোনা যায়। একের পর এক প্রচণ্ড বিস্ফোরণে কেঁপে ওঠে এলাকা। এই অভিযানে ঢাকা থেকে যাওয়া পুলিশের কাউন্টার টেররিজম ইউনিট ও সোয়াত সদস্যদের সঙ্গে স্থানীয় পুলিশ ও র‌্যাব সদস্যরা রয়েছেন। আছেন বোমা নিস্ক্রিয়কারী দলের সদস্য ও ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা। বুধবার বিকালে সীতাকুণ্ড পৌর শহরে জেএমবির জঙ্গিদের একটি আস্তানা থেকে অস্ত্র ও বিস্ফোরকসহ এক দম্পতিকে গ্রেপ্তারের পর নিকটবর্তী এলাকার ওই বাড়িতে অভিযানে যায় পুলিশ। সেখানে গিয়ে গ্রেনেড হামলায় এক পুলিশ কর্মকর্তা আহত হওয়ার পর থেকে বাড়িটি ঘিরে রাখেন পুলিশ ও র‌্যাব সদস্যরা।

বাড়িওয়ালার কাছ থেকে খবর পেয়ে বুধবার বিকাল ৩টা থেকে সাড়ে ৩টার মধ্যে সীতাকুণ্ড পৌর এলাকার নামার বাজার ওয়ার্ডের আমিরাবাদ এলাকায় দোতলা সাধন কুটির নামে একটি ভবনের নিচতলায় পুলিশের অভিযান শুরু হয়। সেখান থেকে অস্ত্র ও বিস্ফোরকসহ জসিম ও আর্জিনা নামের ওই দম্পতিকে গ্রেপ্তার করা হয়। এই দম্পতির দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে পাশের প্রেমতলা ওয়ার্ডের চৌধুরী পাড়ার ছায়ানীড় নামের এই দোতলা বাড়িতে অভিযানে যায় পুলিশ। সেখানে গিয়ে গ্রেনেড হামলায় সীতাকুণ্ড থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মোজাম্মেল হক আহত হন। পরে সীতাকুণ্ডের ওসি ইফতেখার হাসানের নেতৃত্বে আরেকটি দল এসে বাড়িটি ঘিরে ফেলে। পরে তাদের সঙ্গে যোগ দেন র‌্যাব ও সোয়াত সদস্যরা।

 


মন্তব্য