kalerkantho


এসআই মাহাতাবের তাণ্ডবে এখনও আতঙ্ক কাটেনি সেই পরিবারের

মাদারীপুর প্রতিনিধি    

১৪ মার্চ, ২০১৭ ২১:৪২



এসআই মাহাতাবের তাণ্ডবে এখনও আতঙ্ক কাটেনি সেই পরিবারের

মাদারীপুর সদর উপজেলার লক্ষ্মীগঞ্জ এলাকায় এক পরিবারের দুই নারীকে থানায় আটকে রাখা এবং বাড়ি ঘরে ভাংচুরের ঘটনায় এখনও আতঙ্ক কাটেনি সেই পরিবারের। উল্টো মামলার ভয়ে বাড়িতে থাকতে পারছেনা পরিবারের পুরুষ সদস্যরা। আজ মঙ্গলবার সরেজমিন মাদারীপুর সদর উপজেলার লক্ষ্মীগঞ্জ এলাকায় এমনই দৃশ্য চোখে পড়ে।

স্থানীয় ও ভুক্তভোগি সূত্রে জানা গেছে, পুলিশের হামলা ও আটকের ঘটনার পর পনির হোসেনের বাড়িতে এখনও আতংক যাইনি। ঐ পরিবারের পুরুষ সদস্যরা পুলিশের ভয়ে বাড়িতে যেতে সাহস পাচ্ছে না।  

এ ব্যাপারে পনিরের বড় ভাইয়ে স্ত্রী আকলিমা বেগম বলেন, আমরা কোন মামলার বাদী না আসামীও না তবুও পুলিশ আমাদের দীর্ঘ সময় থানায় আটকে রাখে। আমার দুধের বাচ্চা কান্না কাটি করলেও বাচ্চাকে নিতে দেয়নি। বাচ্চাকে থানায় নিয়ে গেলেও দুধ খাওয়াতে দেয়নি। এখন পরিবারের পুরুষ সদস্যরা পুলিশের ভয়ে বাড়ি ফিরতে পারছেনা। আমরা এর বিচার চাই।  

এ ব্যাপারে পুলিশ সুপার মোহাম্মদ সরোয়ার হোসেন বলেন, ক্ষতিগ্রস্থরা যদি অভিযোগ দেয়, তাহলে ওই এসআইর বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 

উল্লেখ্য, গত রবিবার সকাল ১০টার দিকে মাদারীপুর সদর থানায় বিবাদমান একটি জমির তদন্ত কাজে যান থানার এসআই মাহাতাব হোসেন। এ সময় তিনি লক্ষ্মীগঞ্জ এলাকার বিবাদমান জমির পাশের বাড়ির খালেক বেপারীর ছেলে পনির হোসেনের কাছে মামলা সংক্রান্ত বিষয় জানতে চান।  

তবে মামলা সর্ম্পকে পনির কিছু জানে না বলে জানান। এতে এসআই মাহাতাব ক্ষিপ্ত হয়ে পনিরকে থাপ্পর দেয়। এক পর্যায়ে পনির পুলিশের সাথে বাক-বিতাণ্ডায় জড়িয়ে পড়ে। এতে আরও বেশি ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে মাহাতাব। পরে ফোন করে সদর থানা থেকে তিন গাড়ি পুলিশ নিয়ে পনিরের বাড়ীতে ব্যাপক তান্ডব চালায়।  

এ সময় পনির ও তার বড় ভাই-বোনের ঘরে মূল্যাবান আসবারপত্র ও নিত্য প্রয়োজনীয় হাড়ি-পাতিল, থালা-বাসনসহ রান্নার চুলাও ভেঙ্গে ফেলে। এ সময় পনিরের স্ত্রী ঝুনু বেগম ও তার বড় ভাইয়ে স্ত্রী আকলিমা বেগমকে গত রবিবার সকাল ১১টার দিকে টেনে-হিঁচড়ে পুলিশের গাড়িতে তুলে নিয়ে যায়।  

তখন ঝুনু বেগমের তিন মাসের শিশু ও আকলিমা বেগমের ১৮ মাসের শিশুকে কোল থেকে রেখে যেতে বাধ্য করে। পরে ঐদিন রাত ১২টার দিকে ভয়-ভীতি দেখিয়ে সাদা কাগজে মুচলিকা নিয়ে ছেড়ে দেয়। এই ঘটনায় ওই শিশুদের বাহিরে রেখে ১৩ ঘন্টা থানায় আটকে ছিল দুই মা।  


মন্তব্য