kalerkantho


স্থানীয় সরকার প্রতিনিধিদের উদ্দেশে রাষ্ট্রপতি

'আপনারা জনগণের সেবক, জনগণের পয়সা খাবেন না'

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১২ মার্চ, ২০১৭ ২২:৫১



'আপনারা জনগণের সেবক, জনগণের পয়সা খাবেন না'

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ স্থানীয় সরকার প্রতিনিধিদের উদ্দেশে বলেছেন, সঠিকভাবে কাজ করতে হবে। আপনারা জনগণের সেবক। জনগণের অর্থের অপচয় বা দুর্নীতি করবেন না, জনগণের পয়সা খাবেন না। নির্বাচনের আগে যেমন চরিত্র ফুলের মতো পবিত্র বলেন, নির্বাচনের পরও যেন পবিত্র থাকে- সেভাবে কাজ করবেন। আজ রবিবার মিঠামইন উপজেলার মুক্তিযোদ্ধা আবদুল হক ডিগ্রি কলেজ মাঠে সুধী সমাবেশে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি আরো বলেন, নতুন প্র মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতার ইতিহাস সম্পর্কে সঠিক ধারণা দিতে হবে। এজন্য প্রত্যেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের এ বিষয়ে আন্তরিক হতে হবে। সঠিক পাঠদানের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের জ্ঞানকে সমৃদ্ধ করতে হবে। এটাই শিক্ষকের দায়িত্ব।

হাওরের উন্নয়নের বিষয়ে রাষ্ট্রপতি বলেন, হাওরের উন্নয়ন ছাড়া দেশের সার্বিক উন্নয়ন সম্ভব নয়। তাই সে ’৭০-এর নির্বাচনের পরই হাওরের সমস্যাগুলো চিহ্নিত করতে চেষ্টা করেছি।

বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে আন্দোলন-সংগ্রাম করেছি। ’৭৩-এ নির্বাচিত হওয়ার পর হাওরের উন্নয়নের কথা চিন্তা করেছি। কিন্তু দীর্ঘদিন বিরোধী দলে থাকায় তেমন কোনো উন্নয়ন করতে পারিনি। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর হাওরের উন্নয়ন শুরু করি। আমার স্বপ্ন, হাওর অঞ্চলকে একটি মডেল হিসেবে গড়ে তোলা।

তিনি বলেন, ১৯৯৮ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা হাওরে এসেছিলেন। তখন কিশোরগঞ্জ থেকে রিকশা এনে তাকে সভাস্থলে নিয়ে যাই। আর এখন রিকশার ছড়াছড়ি। অল-ওয়েদার সড়ক হাওরের সব জায়গায় করা সম্ভব নয়। তাই হাওরের বিভিন্ন এলাকায় সাবমার্জিবুল (ডুবো সড়ক) সড়ক করা হচ্ছে। ইটনা-মিঠামইন-অষ্টগ্রাম সংযোগ সড়ক করা হচ্ছে। এই সড়কের সঙ্গে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার চাতলপাড় নদীতে সেতু করে সারাদেশের সঙ্গে হাওরের সংযোগ স্থাপন করা হবে। অকাল বন্যা হাওরের প্রধান সমস্যা। প্রতি বছর হাওরের জনগণ প্রকৃতির সঙ্গে যুদ্ধ করে। ঢেউয়ে বিলীন হচ্ছে গ্রাম। তাই হাওরের প্রতিটি গ্রামে পর্যায়ক্রমে প্রতিরক্ষা দেয়াল নির্মাণের ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সুধীজনের উদ্দেশে তিনি বলেন, মানুষের জন্য কাজ করুন। বিশেষ করে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, এতিমখানাসহ জনকল্যাণমহৃলক কাজে নেমে পড়ূন। তাহলে ঠিকই জনগণ আপনাদের পাশে থাকবে।

কলেজের অধ্যক্ষ আবদুল হক নূরুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যর মধ্যে বক্তব্য রাখেন রেজওয়ান আহম্মদ তৌফিক এমপি, মো. আফজাল হোসেন এমপি, অ্যাডভোকেট সোহরাব উদ্দিন এমপি, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জিল্লুর রহমান, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবু সাহীদ ভূঞা, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সমীর কুমার বৈষষ্ণব প্রমুখ।

এর আগে দুপুরে রিকশায় চড়ে মিঠামইন উপজেলা সদরের বাজার ঘুরেন রাষ্ট্রপতি। দুপুর দেড়টার দিকে তিনি বাজারের দোকানপাট ও বাজারে নির্মিত বিভিন্ন স্থাপনা ঘুরে দেখেন।

 


মন্তব্য