kalerkantho


রাজশাহীতে মুকুল ধরা আমগাছ নিয়ে বিরোধ

তানোর প্রতিনিধি:    

৪ মার্চ, ২০১৭ ২২:১৮



রাজশাহীতে মুকুল ধরা আমগাছ নিয়ে বিরোধ

রাজশাহীর তানোরে জমি-জমা নিয়ে পূর্ব শক্রুতার জের ধরে প্রতিপক্ষের নামে মামলা দিয়ে গ্রেপ্তার করানোর পর ওই জমির গাছ কেটে নেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় শাহানা নামের এক নারী বাদি হয়ে ৪জনকে আসামী করে তানোর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।  

পুলিশ ও এলাকাবাসী সুত্রে জানা গেছে, তানোর উপজেলার নারায়ণপুর মৌজায়, জে-এল নম্বর ১৬০, আরএস দাগ নম্বর ১৮, এসএ দাগ নম্বর ১৯, সাবেক খতিয়ান নম্বর ১৪৬, হাল খতিয়ান নম্বর ১৭, পরিমার ১,১৪শতকের কাত ৫২শতক জমি নিয়ে নারায়ণপুর গ্রামের মৃত ইসমাইলের পুত্র সেলিম দিং’র সাথে দীর্ঘদিন ধরে একই গ্রামের মৃত আবির মণ্ডলের পুত্র ছাবেদ আলী দিং এর মধ্যে দ্বন্দ্ব চলে আসছিল।  

সম্প্রতি ওই জমি দখলে নিয়ে মৃত ইসমাইলের পুত্র সেলিম বাদি হয়ে মৃত আবির মণ্ডলের পুত্র ছাবেদ আলীসহ ১০জনকে আসামী করে চাঁদাবাজি, অবৈধ দখল, মারপিট ও গাছ কেটে চুরির অভিযোগ এনে তানোর থানায় একটি মামলা হয়। সেই মামলায় গতকাল রাতে তানোর থানা পুলিশ ছাবেদ আলী (৫৫) ছাবেদ আলীর পুত্র সাইফুল ইসলাম (২৫) এবং ছাবেদ আলীর ভাই ইউনুস আলীকে (৫০) গ্রেপ্তার করেন।  

অপর দিকে প্রতিপক্ষের ৩জন গ্রেপ্তার হওয়ার পরদিন আজ শনিবার সকালে সেলিম উদ্দিন তার দলবল নিয়ে ওই জমিতে থাকা (১৯টি আম গাছ যার আনুমানিক মুল্য ২লাখ টাকার বেশী) মুকুল ধরা আম গাছ গুলো কেটে ফেলেন। এসময় খবর পেয়ে ছাবেদ আলীর পরিবারের সদস্যরা বাঁধা দেয়ার চেষ্টা করলে তাদেরকে বিভিন্ন ভাবে ভয়ভীতি ও হুমকি দিয়ে গাছ গুলো নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে।  

বিষয়টি নিয়ে আজ শনিবার দুপুরে ছাবেদ আলীর কন্যা শাহানা বাদি হয়ে সেলিমসহ ৪জনকে আসামী করে তানোর থানায় অভিযোগ দায়ের করলে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ২টি ভুটভুটি উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসেন এবং কেটে রাখা আমগাছগুলো স্থানীয় ইউপি সদস্য’র জিম্মায় দেন। এঘটনায় দুপক্ষের মধ্যে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে।  

তানোর থানার এএসআই নাজমুল হোসেন গাছ কেটে নেয়ার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, অভিযোগের প্রেক্ষিতে আজ দুপুরে ঘটনাস্থলে গিয়ে কাউকেই পাওয়া যায়নি। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে সকলে পালিয়েছে।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা তানোর থানার এসআই রায়হান সরদার বলেন, আগের মামলার প্রেক্ষিতে আসামীদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তানোর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মীর্জা আব্দুস সালাম বলেন, বিষয়টি নিয়ে স্থানীয়রা আপোষের চেষ্টা করছে। তবে মুকুল ধরা আম গাছগুলো কাটা ঠিক হয়নি।


মন্তব্য