kalerkantho


মাতারবাড়ী বিদ্যুৎ কেন্দ্রের জন্য ১০ কোটি টাকার চেক বিতরণ

নিজস্ব প্রতিবেদক, কক্সবাজার   

৪ মার্চ, ২০১৭ ১৮:৩৯



মাতারবাড়ী বিদ্যুৎ কেন্দ্রের জন্য ১০ কোটি টাকার চেক বিতরণ

কক্সবাজারের মহেশখালী দ্বীপের মাতারবাড়ীতে ৭শত মেগাওয়াট বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণের জন্য অধিগ্রহণ করা ভূমির মালিকদের নিকট আজ শনিবার আরো এক দফায় ১০ কোটি ৪ লাখ টাকার চেক বিতরণ করা হয়েছে । মাতারবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদ মিলনায়তনে অনুষ্টিত চেক বিতরণ অনুষ্টানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন মহেশখালী-কুতুবদিয়ার সংসদ সদস্য আশেক উল্লাহ রফিক।

অনুষ্টানে ক্ষতিগ্রস্থ ১৪৫ জন ভুমি মালিকের নিকট চেক বিতরণ করা হয়।  

জেলা প্রশাসন সুত্রে জানা গেছে, বাংলাদেশ সিঙ্গাপুরের যৌথ বিনিয়োগে মাতারবাড়ী ইউনিয়নে আলট্রাসুপার ক্রিটিক্যাল কোল পাওয়ার্ড বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপন করার জন্য এক হাজার ২০০ একর জমি অধিগ্রহন করা হয়েছে। অধিগ্রহন করা জমির ক্ষতিপূরণ দেয়া হচ্ছে ৩৬৬ কোটি টাকা। আজ শনিবার পর্যন্ত কয়েক দফায় প্রায় ৮০ কোটি টাকার ক্ষতিপূরণ ইতিমধ্যে ক্ষতিগ্রস্থদের নিকট প্রদান করা হয়েছে।

আজকের চেক বিতরণ অনুষ্ঠানে কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আলী হোসেন সভাপতিত্ব করেন। অনুষ্ঠানে বক্তব্য দিতে গিয়ে স্থানীয় বক্তারা বলেন, মাতারবাড়ীর বিদ্যুৎ উন্নয়ন প্রকল্পের জন্য দেশের স্বার্থে প্রধানমন্ত্রীর আহ্বানে তাৎক্ষণিক সাড়া দিয়ে তাদের লবণ ও চিংড়ি চাষের জমি নিঃশর্তে অধিগ্রহণের জন্য ছেড়ে দিয়েছেন। তারা প্রধানমন্ত্রীকে মাতারবাড়ীতে দেখতে চান।  

অনুষ্ঠানে বক্তৃতা দিতে গিয়ে মাতারবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মোহাম্মদুল্লাহ মাস্টার বলেন, মাতারবাড়ীতে ২টি বিদ্যুৎ কেন্দ্র হচ্ছে। একটি এক হাজার ৪০০ একর জমিতে স্থাপণ করছে জাপানের উন্নয়ন সংস্থা জাইকা।

অপর বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি এক হাজার ২০০ একর জমিতে  স্থাপণ করছে সিঙ্গাপুর ও বাংলাদেশের যৌথ বিনিয়োগে। এই দু’টি কেন্দ্রের জন্য অধিগ্রহণ করা জমির ক্ষতিপূরণের টাকা দেওয়া হচ্ছে দুই রকমের। জাইকার জমিতে দেওয়া হচ্ছে একর প্রতি ১৩ লাখ টাকা আর সিঙ্গাপুরের প্রকল্পের জমিতে দেওয়া হচ্ছে একর প্রতি ৩৩ লাখ টাকা করে। ইউপি চেয়ারম্যান একই মৌজার জমির ক্ষতিপূরণে এরকম তারতম্যের অবসান দাবি করেন। বক্তারা জমি অধিগ্রহনের কারণে ক্ষতিগ্রস্থদের পূণর্বাসেনর দাবিও জানান।

অনুষ্টানে অন্যান্যের মধ্যে কক্সবাজারের অতিরিক্তি জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মোহাম্মদ আনোয়ারুল নাসের, মহেশখালী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ আবুল কালাম, মহেশখালী থানার ওসি প্রদীপ কুমার দাশ, জেলা পরিষদ সদস্য মাস্টার রুহুল আমিন, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি জিএম ছমি উদ্দিন বক্তৃতা করেন।  


মন্তব্য