kalerkantho


মনোহরগঞ্জে নিখোঁজ প্রবাসীর লাশ উদ্ধার

কুমিল্লা দক্ষিণ প্রতিনিধি   

২ মার্চ, ২০১৭ ১৮:১০



মনোহরগঞ্জে নিখোঁজ প্রবাসীর লাশ উদ্ধার

কুমিল্লার মনোহরগঞ্জে নিখোঁজের ৭দিন পর ডাকাতিয়া নদী থেকে মো.ইয়াকুব আলী (৫০) নামে এক প্রবাসীর অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। আজ বৃহস্পতিবার দুপুর ২টার দিকে উপজেলা সদরের মনোহরগঞ্জ বাজারের উত্তর পাশে ঝলম-ডুমুরিয়া গ্রামের মাঝামাঝি স্থান দিয়ে বয়ে যাওয়া ডাকাতিয়া নদী থেকে লাশটি উদ্ধার করা হয়।

ইয়াকুব আলী উপজেলার উত্তর হাওলা গ্রামের মিজি বাড়ির মৃত. আবদুর রশিদের ছেলে। তিনি গত প্রায় ৪ মাস আগে ওমান থেকে দেশে এসেছিলেন।

পুলিশ ও পরিবার সূত্রে জানা গেছে, গত ২৩ ফেব্রুয়ারি (বৃহস্পতিবার) আসরের নামাজের পর বাড়ি থেকে নিখোঁজ হন ইয়াকুব আলী। এরপর থেকে তাঁর কোন খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিল না। এ ঘটনায় ইয়াকুবের স্ত্রী শাহনাজ বেগম থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। এছাড়া পরিবারের লোকজন তাঁর সন্ধান চেয়ে বিভিন্ন এলাকায় মাইকিংও করে।

সর্বশেষ আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে ডাকাতিয়া নদীর ওই স্থানে কচুরি পেনা কাটতে গিয়ে স্থানীয় এক যুবক নদীর মধ্যে প্রথমে অজ্ঞাত এক ব্যক্তির মরদেহ ভাসতে দেখে চিৎকার করলে স্থানীয় লোকজন এসে থানা পুলিশে খবর দেয়। পরে পুলিশের সদস্যরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে ওই ব্যক্তির লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে গেলে পরিবারের সদস্যরা থানায় গিয়ে লাশের পরিচয় নিশ্চিত করেন।

ইয়াকুব আলীর শ্যালক ও উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম-আহবায়ক জানে আলম জানান, গত প্রায় ৪ মাস আগে ওমান থেকে দেশে এসেছিলেন ইয়াকুব আলী।

তিনি ২ ছেলে ও ৩ মেয়ের জনক। তবে কি কারণে বা কারা ওই প্রবাসীকে হত্যা করতে পারে সে বিষয়ে তাৎক্ষণিকভাবে কিছুই জানাতে পারেননি তিনি।  

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে মনোহরগঞ্জ থানার পুলিশ পরির্দশক (তদন্ত) মাহবুবুর কবির জানান, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে লাশটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজে (কুমেক) হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেছে। তিনি জানান, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে কয়েকদিন আগে ইয়াকুব আলীকে হত্যার পর লাশ নদীতে ফেলে দেওয়া হয়েছে। তিনি জানান, এ ঘটনায় থানায় হত্যা মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলে জানান তিনি।


মন্তব্য