kalerkantho


জাতীয় গ্রিড লাইনে সংযুক্ত হলো দুর্গম থানচি উপজেলা

নিজস্ব প্রতিবেদক, বান্দরবান   

১ মার্চ, ২০১৭ ২১:০৩



জাতীয় গ্রিড লাইনে সংযুক্ত হলো দুর্গম থানচি উপজেলা

স্বাধীনতার ৪৬ বছর পর আজ ১ মার্চ থেকে বিদ্যুৎ পেল থানচিবাসী। আজ ১ মার্চ দুপুরে ঢাকার গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই উপজেলায় বিদ্যুতায়ন কর্মসূচির উদ্বোধন করেন।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বান্দরবান জেলা প্রশাসকের সভা কক্ষ প্রান্তে উপস্থিত ছিলেন পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর উ শৈ সিং এমপি, বান্দরবানস্থ ৬৯ পদাতিক ব্রিগেডের কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল যোবায়ের সালেহীন, বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ক্য শৈ হ্লা, বান্দরবানের জেলা প্রশাসক দিলীপ কুমার বণিক, পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায়, বান্দরবানের পৌর মেয়র মোহাম্মদ ইসলাম বেবী এবং বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের উর্ধতন প্রকৌশলীরা উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিদ্যুতায়ন প্রকল্পের অধীনে চিম্বুক থেকে থানচি পর্যন্ত প্রায় ৫০ কিলোমিটার দীর্ঘ সঞ্চালন লাইন, বলিপাড়ায় একটি বিদ্যুত সাব-স্টেশন স্থাপন, বিভিন্ন পয়েন্টে ট্রান্সফরমার সংস্থাপন ও প্রয়োজনীয় অবকাঠামো নির্মাণ করা হয়। এই প্রকল্পে ব্যয় হয় ২০ কোটি ৫৪ লাখ টাকা।

পার্বত্য চট্টগ্রাম বিদ্যুতায়ন প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক (পিডি) প্রকৌশলী উজ্জ্বল বড়ুয়া জানান, জাতীয় গ্রিড লাইনের সাথে সংযুক্ত প্রায় ৫ এমভিএ (৪ ইন্টু ওয়ান পয়েন্ট সি সেভেন বাই টু পয়েন্ট টু থ্রি এমভিএ) মেগা ভোল্ট এমপিয়ার ক্ষমতা সম্পন্ন বিদ্যুৎ দিয়ে ছোট থেকে মাঝারি পর্যায়ের শিল্প-কারখানাও চালানো যাবে।

প্রকল্প পরিচালক জানান, প্রথম পর্যায়ে থানচি উপজেলা সদর, বিজিবি ব্যাটেলিয়ন হেড কোয়ার্টার, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স  থানা, উপজেলা পরিষদ এবং বলিপাড়া বাজার থেকে থানচি পর্যন্ত সড়ক পথের কাছাকাছি গ্রামগুলোকে বিদ্যুতায়নের আওতায় নিয়ে আসা হবে।

থানচি বাজারের কম্পিউটার সেন্টারের মালিক অনুপম মারমা জানান, বর্তমানে কয়েকটি বাড়ি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে বিদ্যুৎ সংযোগ দেয়া হয়েছে। মাসখানেকের মধ্যেই থানচি উপজেলার ঘরে ঘরে বিদ্যুত পৌঁছে দেয়া হবে বলে স্থানীয় বিদ্যুত কর্মকর্তারা তাদের আশ্বাস দিয়েছেন।


মন্তব্য