kalerkantho


অদুদ হত্যা মামলার বাদীকে তদন্ত কর্মকর্তার হুমকি

দাউদকান্দি (কুমিল্লা) প্রতিনিধি   

১ মার্চ, ২০১৭ ১৮:৪৪



অদুদ হত্যা মামলার বাদীকে তদন্ত কর্মকর্তার হুমকি

দাউদকান্দিতে অদুদ হত্যা মামলার তদন্ত কর্মকর্তা গৌরীপুর তদন্ত কেন্দ্রের উপ-পরিদর্শক তপন কুমার বাকচী মোটা অংকের উৎকোচের বিনিময়ে ৪জন আসামীকে দেওয়ায় বাদী লাভলী আক্তারকে তদন্ত কর্মকর্তা বিরুদ্ধে কুমিল্লা পুলিশ সুপারের নিকট অভিযোগ করেন।  

এ অভিযোগের প্রেক্ষিতে কুমিল্লা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (উত্তর) বিষয়টি আমলে নিয়ে মামলার তদন্ত কর্মকর্তার বিরুদ্ধে করা অভিযোগটি দাউদকান্দি সার্কেলকে ৭দিনের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দিতে নির্দেশ প্রদান করেছেন। মামলার বাদী লাভলী আক্তার পুলিশ সুপারের নিকট অভিযোগ করায় গত রবিবার বিকেলে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা উপ-পরিদর্শক তপন কুমার বাকচী বাদীর বাড়িতে গিয়ে বিভিন্ন ভাবে হুমকি দেওয়ায় অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এলাকাবাসী ও বাদীর অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, গত ১৪-৪-২০১৬ইং তারিখে প্রকাশ্যে দিবালোকে এক সালিস বৈঠকে এফআইআর ভুক্ত আসামীরা আবদুল ওাদুদ ভুইয়াকে হত্যা করে। পরের দিন ১৫-৪-১৬ইং তারিখে আমি বাদী হয়ে মো. দুলাল ভুইয়া গংসহ প্রকৃত হত্যাকারী ১০(দশ) জনকে আসামী করে দাউদকান্দি মডেল থানায় মামলা করা হয়। মামলা দেওয়ার পর থেকেই আসামীরা আমাকে মোবাইল ফোনে বাদীকে মামলা ওঠানোর জন্য বিভিন্ন ভাবে হুমকি দিতে থাকে। বাদী লাভলী আক্তার গৌরীপুর পুলিশ ফাঁড়িতে এসে এ বিষয়ে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এস.আই তপন কুমার বাকচীকে অভিহিত করা হয়। তিনি ব্যবস্থা গ্রহন না করে বরং উল্টো মামলার বিভিন্ন প্রকার কাগজ পত্র সরবরাহ করে আসামীদেরকে জামিন লাভের ব্যাপারে সহায়তা করেন। আসামীরা জামিনে আসার পর আমাকে আবারও হুমকি প্রদর্শন করলে তদন্ত কর্মকর্তাকে তা জানানো হয়। তারপরও তিনি কোন ব্যবস্থা গ্রহন না করে বরং এফআইআর ভুক্ত ৪জন আসামীকে মামলা থেকে বাদ দেওয়ার জন্য বাদী চাপ সৃষ্টি করে।  

দাউদকান্দি সার্কেলের সিনিয়র পুলিশ সহকারী সুপার মহিদুল ইসলামের সাথে আলাপকালে তিনি বলেন, অদুদ হত্যা মামলার তদন্ত কর্মকর্তা গৌরীপুর তদন্ত কেন্দ্রের উপ-পরিদর্শক তপন কুমার বাকচীর বিরুদ্ধে পুলিশ সুপারের নিকট বাদীর অভিযোগ করা তদন্ত করা জন্য একটি অভিযোগ পত্র পেয়েছি।

তদন্ত কর্মকর্তা কেন বাদী বাড়িতে গিয়েছে তা তদন্ত করে দেখা হবে।


মন্তব্য