kalerkantho


বেনাপোলে ভারত থেকে আসা পাসপোর্ট যাত্রীদের দুর্ভোগ

বেনাপোল প্রতিনিধি   

২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ১৯:৫২



বেনাপোলে ভারত থেকে আসা পাসপোর্ট যাত্রীদের দুর্ভোগ

পরিবহন ধর্মঘটের তৃতীয় দিনে বেনাপোল বন্দর সম্পূর্ণ অচল হয়ে পড়েছে। বন্দরে আটকাপড়ে কোটি টাকার ওষুধ, মাছ ও পিয়াজ জাতীয় পণ্য নস্ট হচ্ছে।

হাজার খানেক ট্রাক ও ট্রাক চেসিস খালাশের অপেক্ষায় যত্রতত্র পড়ে আছে বন্দরের বাইরে।  

ভারত থেকে আসা শতশত পাসপোর্ট যাত্রী আজও বেনাপোল চেকপোস্টে আটকা পড়ে দুর্ভোগের শিকার হচ্ছে। অনেকেই পরিবহন কাউন্টার, টার্মিনাল, বিভিণ্ণ হোটেল সহ খোলা আকাশের নীচে অবস্থান নিয়েছে। রোগীরা অসহায় অবস্থায় পরিবহন কাউন্টারে আশ্রয় নিয়েছে। পরিবহন শ্রমিকরা রাস্তার রাস্তায় লাঠি সোটা নিয়ে বেরিকেট দেয়ায় ভয়ে অনেকেই বেনাপোল ছেড়ে যেতে চাইছে না।  

ভারতের অন্ধ্র প্রদেশ থেকে আসা ট্রাক চালক কে বাসাই জানান, ধর্মঘটের কারণে গত তিন ধরে তার মাছের ট্রাক খালি হচ্ছে না । তার মাছ নস্ট হয়ে গেছে। দূর্গন্ধ ছাড়াতে শুরু করেছে। কাছে পয়সা নেই অন্য চালকদের কাছ থেকে লোন করে খাওয়া দাওয়া করতে হচ্ছে।

 

পারমোজিত সিংহ নামে অপর এক ভারতীয় ট্রাক চালক জানান, তিনি পিয়াজের ট্রাক নিয়ে গত চার দিন ধরে বন্দরে অবস্থান করছেন। তারও পিয়াজ নস্ট হওয়ার পথে। নস্টের ভয়ে তিনি ট্রাকের ত্রিপল খুলে দিয়ে আরো বাতাস লাগাচ্ছেন ।  

ভারত থেকে আসা হার্টের রোগী উজ্জল কুমার ঘোষ জানান, তিনি ২৫ দিন পর ভারতে চিকিৎসা শেষে দেশে ফিরেছেন। ধর্মঘটের কারণে তিনি তার বাড়ি নাটোরে ফিরতে পারছেন না। তিনি তার এক আত্মীয় কে খুলনা থেকে এম্বুলেন্স পাঠাতে বলেছেন। যদি এম্বুলেনস আসে তাহলে বাড়ি ফিরবেন, তা না হলে পরিবহন কাউন্টারে আশ্রয় নেবেন।  

কাস্টমস কমিশনার শওকাত হাসেন জানান, পরিবহন ধর্মঘটে রাজস্ব আদায়ে বড় ধরণের প্রভাব পড়েছে। যেখানে প্রতিদিন ১৪/১৫ কোটি টাকা রাজস্ব আয় হওয়ার কথা সেখানে প্রতিদিন ১/২কোটি টাকার রাজস্ব আয় হচ্ছে। কাস্টমস সুত্র জানায়, গত তিন দিনে বেনাপোল বন্দর থেকে প্রায় ৪০ কোটি টাকার রাজাস্ব আয় থেকে বঞ্চিত হয়েছে সরকার। ধর্মঘট চললেও বেনাপোল বন্দর দিয়ে দু’দেশের মধ্যে আমদানি বাণিজ্য সচল রয়েছে। বন্দর থেকে পণ্য  লোড না হওয়ার কারণে বন্দর সড়কের দু ’পাশে শত শত ট্রাক আটকা পড়েছে।  

ভারত বাংলাদেশ চেম্বারের বন্দর সাব কমিটির চেয়ারম্যান মতিয়ার রহমান জানান, ধর্মঘটের কারণে তার ৭/৮টি অক্সিজেনবাহী ৪০ ফুট ট্রাংকার আটকা পড়েছে। অক্সিজেনের অভাবে হাসাপাতালসহ শিল্প কলকারখানায় ভয়াবহ অক্সিজেন সংকট দেখা দিচ্ছে।   

বন্দর অভ্যন্তরে ভারতীয় ট্রাক ড্রাইভাররা দিনের পর দিন আটকে থাকায় তারা বন্দর অভ্যন্তরে রান্না করে খাওয়া দাওয়া করছে। বিভিন্ন কুরিয়ার সার্ভিসের গাড়ী আটক করে পথে পথে হয়রানি করছে পরিবহন শ্রমিকরা।


মন্তব্য