kalerkantho


বাগেরহাটে পুলিশের মাদকদ্রব্য ও জঙ্গিবাদ বিরোধী সভা

বিষ্ণু প্রসাদ চক্রবর্ত্তী,বাগেরহাট   

২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ১৯:১৯



বাগেরহাটে পুলিশের মাদকদ্রব্য ও জঙ্গিবাদ বিরোধী সভা

বাগেরহাটের ২০টি ইউনিয়নকে মাদক মুক্ত ঘোষণা করা হয়েছে। মাদকদ্রব্য ও জঙ্গিবাদ এবং সন্ত্রাসবাদ বিরোদী সভায় এই ঘোষণা দেন পুলিশের খুলনা রেঞ্জের ডিআইজি এস এম মনির-উজ-জামান। আজ মঙ্গলবার সকালে বাগেরহাট স্বাধীনতা উদ্যানে জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে ওই সভার আয়োজন করা হয়।

সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে ডিআইজি এস এম মনির-উজ-জামান বলেন, সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ ও মাদকের প্রভাব এবং বিস্তার একটি বৈষয়িক সমাস্যা। একই সাথে এটা এখন সামাজিক সমাস্যয় দাঁড়িয়েছে। বাংলাদেশ এর থেকে বিচ্ছিন্ন অবস্থায় নেই। পুলিশ দেশব্যাপী সামাজিক আন্দোলনের মধ্যে দিয়ে মাদক, সন্ত্রাস এবং জঙ্গিবাদ মুক্ত বাংলাদেশ গড়তে কাজ করে যাচ্ছে। এই কর্মসূচির অংশ হিসাবে বাগেরহাটে ১০০ দিনের কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়েছে বলে তিনি জানান।

ডিআইজি আরো বলেন, জঙ্গিবাদ দমনে পুলিশ নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছে। বাগেরহাটে পুলিশ দুই দফায় অভিযান চালিয়ে আটজন জঙ্গিকে আটক করেছে। জঙ্গি বিরোধী অভিযান চলাকালে বাগেরহাটে পুলিশের সাথে ইনকাউন্টারে এক জঙ্গি নেতা নিহত হয়েছে।

জঙ্গিদমনে পুলিশের তৎপরতা অব্যহত রয়েছে। জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাবাদ এবং মাদকমুক্ত দেশ গড়তে সমাজের সব শ্রেণিপেশার মানুষের সহযোগিতা চাইলেন তিনি।  

ডিআইজি জানান, বাগেরহাটের ৭৫টি ইউনিয়নের মধ্যে ২০টি ইউনিয়নকে মাদক মুক্ত ঘোষণা করা হয়েছে। আসলে ওই সব ইউনিয়ন মাদকমুক্ত হয়েছে কি না তা সাধারণ মানুষের মুখ থেকে আসতে হবে। পুলিশ বললেই তা কার্যকর হবে না এমন মন্তব্য করেন তিনি। চলমান বিশেষ অভিযানে খুলনা বিভাগের বিভিন্ন জেলা থেকে কয়েশত মাদক বিক্রেতা এবং মাদক সেবনকারীকে পুলিশ আটক করতে সক্ষম হয়েছে বলে ডিআইজি জানান।  

বাগেরহাটের পুলিশ সুপার পংকজ চন্দ্র রায়ের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় আরো বক্তব্য রাখেন বাগেরহাটের জেলা প্রশাসক তপন কুমার বিশ্বাস, পুলিশের খুলনা রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজি একরামুল হাবীব, জেলা পুলিশিং কমিটির সাধারণ সম্পাদক এ্যাডভোকেট মো.শাহ্ আলম টুকু প্রমুখ। এসময় মাদক মুক্ত হওয়া ২০টি ইউনিয়নের চেয়ারম্যানরা উপস্থিত ছিলেন।

বাগেরহাট জেলা পুলিশ ওই সভার আয়োজন করে। জেলার বিভিন্ন উপজেলার চেয়ারম্যান এবং বিভিন্ন শ্রেণিপেশার নারী-পুরুষ ওই সভায় যোগদেন।  

মাদকমুক্ত ঘোষিত ইউনিয়ন ২০টি হচ্ছে, গোটাপাড়া, বিষ্ণুপুর, বেতাগা, শুভদিয়া, কোদালিয়া, আটজুড়ি, কুলিয়া, চারবানিয়ারী, শিবপুর, মঘিয়া, ধোপাখালী, জিউধরা, নিশানবাড়িয়া, রামচন্দ্রপুর, খোন্তাকাটা, ঘোষপাতিয়া, মলি­কেরবের, চাঁদপাই, মিঠাখালী ও সুন্দরবন ইউনিয়ন।


মন্তব্য