kalerkantho


নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে দোকান দখলের চেষ্টা

লক্ষ্মীপুরে দুই পক্ষের সংঘর্ষে আহত ৬

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি    

২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ২০:০১



লক্ষ্মীপুরে দুই পক্ষের সংঘর্ষে আহত ৬

লক্ষ্মীপুরে আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে এক সংখ্যালঘুর দোকানঘর দখলে নেওয়ার চেষ্টাকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের সংঘর্ষ ও ধাওয়া-পাল্টাধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। এতে উভয় পক্ষের অন্তত ছয়জন আহত হয়েছে। এ সময় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছোড়ে বলে জানিয়েছে স্থানীয়রা। ‌

আজ শুক্রবার সকালে সদর উপজেলার চন্দ্রগঞ্জ ইউনিয়নের কামারহাট বাজারে এ ঘটনা ঘটে।

আহতরা হলেন সুমন কর্মকার, ইসমাইল হোসেন, ছেরু মিয়া, আলাউদ্দিন, হারাধন এবং বাহার। তাদের মধ্যে সুমন কর্মকার ও ইসমাইলকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অন্যরা স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা নিয়েছেন।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, কামারহাট বাজারে সংখ্যালঘু সুমন কর্মকারের পরিবার দীর্ঘদিন ধরে নিজেদের জমিতে দোকনঘর তুলে ভোগদখল করে আসছিলেন। সম্প্রতি দোকনঘরের ওই সম্পত্তি স্থানীয় ইসমাইল হোসেন হোসেন নামের এক ব্যক্তি ক্রয়সূত্রে দাবি করেন। এ নিয়ে সুমন কর্মকার মামলা করলে আদালত স্থিতাবস্থা বজায় রাখতে ১৪৪ ধারা জারি করেন। আজ শুক্রবার সকাল ৮টার দিকে ইসমাইলসহ তার লোকজন দোকানঘরের তালা ভেঙে সম্পত্তি দখলের চেষ্টা করেন।

খবর পেয়ে দোকানের মালিক সুমন কর্মকার, স্বপন কর্মকার ও প্রদীপ কর্মকার তাতে বাধা দেন। এতে উত্তেজিত হয়ে ইসমাইল হোসেন ও তার লোকজন তাদের ওপর হামলা চালান। একপর্যায়ে উভয় পক্ষে সংঘর্ষ ও ধাওয়া-পাল্টাধাওয়ার ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছে কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুড়ে ও লাঠিচার্জ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

আহত সুমন কর্মকার জানান, ওয়ারিশ সূত্রে তারা গণিপুর মৌজায় ১৮৯ নম্বর  খতিয়ানে ৩৪ ডিং সম্পত্তির মালিক। ইসমাইল একই দাগে তার ক্রয়কৃত সম্পত্তি দাবি করে বারবার তাদের জমি দখল করার চেষ্টা করছেন। ঘটনার সময় আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে জমি দখল করতে আসলে খবর পেয়ে তারা দুই ভাই ঘটনাস্থলে যান। এ সময় ইসমাইলের নেতৃত্বে তার ভাড়াটে সন্ত্রাসীরা তাদের ওপর হামলা করে।

ইসমাইল হোসেন জানান, তিনি ওই দাগে ৬ শতাংশ জমি কিনেছেন। জমি ও দোকানঘর দখল করতে যাওয়ার বিষয়টি অস্বীকার করেন তিনি।

এ ব্যাপারে চন্দ্রগঞ্জ থানার এসআই কবির হোসেন জানান, বিরোধীয় সম্পত্তি দখল নিয়ে দুই পক্ষের হাতাহাতিতে কয়েকজন সামান্য আহত হয়। পরে তিনি পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন। উভয় পক্ষকে স্থিতাবস্থা বজায় রাখার জন্য পুনরায় নোটিশ করা হয়েছে। কেউ আইন ভঙ্গ করলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তবে ফাঁকা গুলি ছোঁড়ার বিষয়টি অস্বীকার করেন তিনি।

 


মন্তব্য